এনটিআরসিএতে শিক্ষক নিয়োগের সঙ্গে যুক্ত একজন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে প্রাথমিকভাবে শূন্য পদের যে তালিকা পান, তাতে বেশ কিছু ভুল থাকে। যেমন কোনো প্রতিষ্ঠানে বাংলা বিষয়ের শিক্ষক দরকার নেই অথচ বাংলার শিক্ষক চাওয়া হয়েছে। আবার কোনো প্রতিষ্ঠানে তিনজন শিক্ষক দরকার, তারা পাঁচজন শিক্ষক চেয়ে আবেদন করেছে। আবার পদ খালি নেই, এমন প্রতিষ্ঠান শিক্ষক চেয়েছে। এসব বিষয় আসলে এনটিআরসিএ তাৎক্ষণিকভাবে যাচাই করতে হিমশিম খায়। আবার অনলাইনেও অনেকে তথ্য পূরণে ভুল করে। এ জন্য নিজ নিজ অধিদপ্তরকে প্রাথমিকভাবে পাওয়া তথ্যগুলো যাচাই করতে বলা হয়েছে। এতে সমন্বয়ের কাজে সুবিধা হয়। তিন প্রতিষ্ঠানের যাচাই করা সব তালিকা এনটিআরসিএতে এলেই প্রকৃত শূন্য পদের সংখ্যা জানা যাবে।

যাচাই দেরির বিষয়ে আরেক কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, ‘কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর শুধু শূন্য পদের তালিকা যাচাই শেষ করেছে। অন্য দুই প্রতিষ্ঠান এখনো শূন্য পদের তালিকা জমা দেয়নি। আমরা প্রতিদিন অন্য দুই প্রতিষ্ঠানকে বারবার তাগাদা দিচ্ছি। ওই দুই প্রতিষ্ঠান দিচ্ছি দেব করলেও এখনো জমা দিচ্ছে না। এ জন্য আমরা বিপদে পড়েছি। বেশি চাপও দিতে পারছি না। যাচাই শেষ হলে দ্রুতই গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হবে।’

ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, বাছাই করা শূন্য পদ পাওয়ার পর পদগুলোর অনুমোদন ও গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের অনুমতি চেয়ে সম্প্রতি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়। সেটি প্রক্রিয়াধীন। এবার আবেদন ফিও কমিয়ে আনা হচ্ছে। অনলাইন আবেদন পদ্ধতি সহজ করাসহ নানা সুবিধা পাবেন নতুন আবেদনকারীরা। চাকরিপ্রার্থীদের খরচ কমাতে এবারই প্রথম অনলাইনে প্রার্থীরা পছন্দের ৪০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নির্বাচন করার সুযোগ পাচ্ছেন।

এসব প্রতিষ্ঠানে সুযোগ না পেলে অন্য প্রতিষ্ঠানে চাকরির সুযোগ রাখা হচ্ছে। মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পেলেই এসব নিয়ম কার্যকর করা যাবে।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে এনটিআরসিএ সচিব মো. ওবায়দুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, তালিকা যাচাই-বাছাই করতে দেওয়া হয়েছে। পর্যালোচনা করে শূন্য পদের তালিকা এলেই তা প্রকাশ করা হবে।