বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বক্তারা জানান, বর্তমান সময়ে অত্যাধুনিক ও এনার্জি-ইফিশিয়েন্ট মেশিন এবং প্রযুক্তির উপযোগিতা অত্যন্ত জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং ক্লিনার প্রোডাকশনের সম্ভাবনা ও ফ্যাক্টরিগুলোর সাসটেইনেবিলিটি অর্জনের সুযোগকে বাড়িয়ে দিয়েছে। এসব প্রযুক্তি স্মার্ট ব্যবসায়িক ও ইকোসিস্টেমের বেশ প্রয়োজনীয় উপাদান, যা বাড়িয়ে দিতে পারে টেকসই লক্ষ্যমাত্রা পূরণের সম্ভাবনা। সেই সঙ্গে ফ্যাক্টরিগুলোর কাজের পরিবেশকে উন্নত করতে এবং একই সঙ্গে শ্রমিকদের দ্রুত পরিবর্তিত এ সেক্টরের সঙ্গে খাপ খাইয়ে তুলতে পারে। সেই সুবাদে বিজনেস ইকোসিস্টেমের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কমপ্লায়েন্স ট্রেড, ইনভেস্টমেন্ট ইস্যুকে কেন্দ্র করে যথাযথ পলিসি তৈরি করতে হবে। এ অনুষ্ঠানের মূল উদ্দেশ্য ছিল পলিসি মেকার ও সেক্টোরাল স্টেকহোল্ডারদের পলিসির দূরত্বগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা, সীমাবদ্ধতা ও পরিবর্তনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরা, নতুন সুযোগ-সুবিধাগুলো আলোচনা করা এবং পোশাকশিল্পের নতুন উদ্যোগ, বাধা, সমাধান নিয়ে বিশদ পর্যালোচনা করা।

সুচারু উপায়ে এফ্লুয়েন্ট ম্যানেজমেন্ট নিয়ে এবং সেই সুবাদে ইকোলজিক্যাল ফুটপ্রিন্ট কীভাবে কমিয়ে আনা যায় ও স্ট্যান্ডার্ড ভ্যালু অর্জনে কী কী সীমাবদ্ধতা ফ্যাক্টরিগুলোর রয়েছে, সেসব বিষয় নিয়ে এ সেশনে আলোচনা করা হয়।

অনুষ্ঠানটি দুটি আলাদা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে পৃথক সেশনে আয়োজিত হয়েছে। এনভায়রনমেন্ট, ইকোলজিকাল ফুটপ্রিন্ট ও এনার্জি নিয়ে আয়োজিত দুটি সেশনেই পৃথক সংলাপ ও পরিসংলাপে অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রথম সেশনে ছিল এফ্লুয়েন্ট ম্যানেজমেন্ট ও ইকোলজিক্যাল ফুটপ্রিন্ট। এই সেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন বিজিএমইএ প্রেসিডেন্ট ফারুক হাসান। এ সেশনে বক্তারা আলোচনা করেন সুচারু উপায়ে এফ্লুয়েন্ট ম্যানেজমেন্ট নিয়ে এবং সেই সুবাদে ইকোলজিক্যাল ফুটপ্রিন্ট কীভাবে কমিয়ে আনা যায় ও স্ট্যান্ডার্ড ভ্যালু অর্জনে কী কী সীমাবদ্ধতা ফ্যাক্টরিগুলোর রয়েছে, সেসব বিষয় নিয়ে।

দ্বিতীয় সেশনে আলোচনার বিষয় ছিল ‘এনার্জি ম্যানেজমেন্ট ও সাসটেইনেবল গ্রোথ অব দ্য অ্যাপারেল সেক্টর’। বুয়েটের ডিন অব ইঞ্জিনিয়ারিং ফ্যাকাল্টির অধ্যাপক এম. তামিম ছিলেন এই অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি। সংলাপের কেন্দ্রবিন্দু হিসেবে অনুষ্ঠানের এ সেশনে পোশাকশিল্পে ইনভেস্টমেন্টের জন্য পলিসি ফরমুলেশন ও পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। দুটি সেশনের শুরুতে ছিল সূচনা বক্তব্য, ছিল কি-নোট প্রেজেন্টেশন এবং অতিথিদের আলাপ-আলোচনা। প্রতিটি পর্ব সঞ্চালনা করেন এসটেক্সের প্রজেক্ট ম্যানেজার ও বুয়েটের কেমিকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মহিদুস সামাদ খান।

অনুষ্ঠানটি সমাপ্ত হয়েছে যথাক্রমে সলিডারিডাড নেটওয়ার্ক এশিয়ার কান্ট্রি ম্যানেজার সেলিম রেজা হাসান ও এসটেক্সের প্রোগ্রাম ম্যানেজার মহিদুস সামাদ খানের সমাপ্তিসূচক বক্তব্য দিয়ে।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন