বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অবস্থান

ঢাকার দক্ষিণ-পূর্ব দিকে সোনারগাঁ। ঢাকা থেকে দূরত্ব ২৭ কিলোমিটার। এটি নারায়ণগঞ্জ জেলার একটি দর্শনীয় এলাকা। যাত্রাবাড়ী পার হয়ে ঢাকা–চট্টগ্রাম সড়ক ধরে কাঁচপুর ব্রিজ পেরোলেই সোনারগাঁ উপজেলা শুরু। এরপর এগিয়ে গিয়ে মোগরাপাড়া বাসস্ট্যান্ডে নেমে অল্প কিছু দূর এগোলেই সোনারগাঁ।

শিল্প-সংস্কৃতি কেন্দ্র

প্রাচীনকাল থেকেই সোনারগাঁ শিল্প-সংস্কৃতির কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠেছিল। এখানকার তৈরি ‘মসলিন’-এর খ্যাতি ছিল বিশ্বজোড়া। পরে এটি ‘জামদানি’ও সুতি কাপড়ের প্রধান কেন্দ্র হয়ে ওঠে।

দৃষ্টিনন্দন সোনারগাঁ

সোনারগাঁজুড়ে সবুজের সমারোহ। পরিখা ও লেক দিয়ে প্রায় ঘেরা। প্রাচীন মসজিদ, ব্রিজ ও প্রাসাদগুলোর কারুকাজ সত্যিই মন কেড়ে নেয়। মসজিদ ও ছোট উঁচু ব্রিজ মোগলরা বঙ্গ দেশে আসার আগে ১৫১৯ সালে নির্মিত হয়েছিল। পানাম নগরীর দালানগুলো জরাজীর্ণ হলেও সূক্ষ্ম ও দৃষ্টিনন্দন নির্মাণকাজ অপূর্ব মনে হয়।

লোকশিল্প জাদুঘর

সোনারগাঁয়ের লোকশিল্প জাদুঘরটি স্থাপন করা হয়েছে সর্দারবাড়ির কাছেই। এর সামনে গাছগাছালিতে ভরা শান্ত পুকুর। পুকুরপাড়ে ঘোড়ায় আরোহী সৈনিকের ভাস্কর্য। পাশ দিয়ে সুন্দর রাস্তা ও বাগান। জাদুঘরে রয়েছে কাঠের তৈরি জিনিস, মুখোশ, মাটির পাত্র, মাটির পুতুল, বাঁশ-লোহা-কাঁসার তৈরি নানা জিনিসপত্র ও অলংকার। এ ছাড়া এখানে রয়েছে প্রাচীনকালে ব্যবহৃত তরবারি, বল্লম ইত্যাদি অস্ত্র। পাশের ভবনে রয়েছে জাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের অনেক বিখ্যাত ছবি, নকশিকাঁথা, জামদানি শাড়ি ইত্যাদি।

উপসংহার

সোনারগাঁয়ের প্রাচীন ইতিহাস ও ঐতিহ্যমণ্ডিত নিদর্শন ও স্থাপনাগুলো সত্যিই অসাধারণ।

খন্দকার আতিক, শিক্ষক
উইল্​স লিট্​ল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ঢাকা

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন