সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর: অধ্যায়-২
প্রিয় শিক্ষার্থীরা, আজ বিজ্ঞানের অধ্যায়-২ থেকে একটি সৃজনশীল প্রশ্নোত্তর দেওয়া হলো।

default-image

প্রশ্ন:
ক. বংশগতি কাকে বলে?
খ. ক্রোমোজোমকে বংশগতির ভৌত ভিত্তি বলা হয় কেন?
গ. চিত্রের কোষ বিভাজন-প্রক্রিয়া ব্যাখ্যা করো।
ঘ. প্রজাতির ধারাবাহিকতা রক্ষায় ওপরের বিভাজনটির ভূমিকা বিশ্লেষণ করো।
উত্তর-ক.
মাতা-পিতার বৈশিষ্ট্য যে প্রক্রিয়ায় সন্তানসন্ততিতে সঞ্চারিত হয়, তাকে বংশগতি বলে।
উত্তর-খ.
নিউক্লিয়াসে অবস্থিত নির্দিষ্টসংখ্যক সুতার মতো যে অংশগুলো জীবের বংশগতির বৈশিষ্ট্য বহন করে, তাকে ক্রোমোজোম বলে। ক্রোমোজম বংশগতির ধারা অক্ষুণ² রাখার জন্য কোষ বিভাজনের সময় জিনকে সরাসরি মাতা-পিতা থেকে বহন করে পরবর্তী বংশঘরে নিয়ে যায়। এ কারণে ক্রোমোজোমকে বংশগতির ভৌত ভিত্তি বলা হয়।
উত্তর-গ.
চিত্রে প্রদর্শিত কোষ বিভাজনটি মিয়োসিস । মিয়োসিস কোষ বিভাজনের মাধ্যমে একটি সুকেন্দ্রিক কোষ বিশেষ প্রক্রিয়ায় বিভাজিত হয়ে চারটি কোষে পরিণত হয়। এই বিভাজন-প্রক্রিয়ায় নিউক্লিয়াস ক্রোমোজোম সংখ্যা মাতৃকোষের ক্রোমোজোম সংখ্যার অর্ধেক হয়। এই কোষ বিভাজন ডিপ্লয়েড জীবের মাতৃজনন কোষে হয়। ফলে হ্যাপ্লয়েড গ্যামেট সৃষ্টি হয়।
উত্তর-ঘ.
চিত্রে মিয়োসিস কোষ বিভাজন দেখানো হয়েছে। ডিপ্লয়েড জীবে জনন মাতৃকোষ মিয়োসিস কোষ বিভাজন ঘটে থাকে। মিয়োসিস কোষ বিভাজনের ফলে একটি মাতৃজনন কোষ বিভাজিত হয়ে চারটি কোষে পরিণত হয় এবং প্রতিটি কোষে ক্রোমোজোম সংখ্যা মাতৃকোষের ক্রোমোজোম সংখ্যার অর্ধেক হয়। অর্থাৎ জননকোষে হ সংখ্যক ক্রোমোজোম থাকে। জনন কোষে ক্রোমোজোম সংখ্যা মাতৃকোষের ক্রোমোজোম সংখ্যার অর্ধেক না হলে পুং ও স্ত্রী জনন কোষের মিলনে সৃষ্ট জীবে ক্রোমোজোম সংখ্যা দ্বিগুণ অর্থাৎ ৪হ হয়ে যেত। ফলে জীবের বৈশিষ্টে্যর ধারাবাহিকতা রক্ষা পেত না। যদি মিয়োসিস না ঘটত, তবে বংশানুক্রমে ক্রোমোজোম সংখ্যা ক্রমান্বয়ে দ্বিগুণ, চার গুণ, আট গুণ এভাবে বাড়তে থাকত। ফলে প্রজাতির বৈশিষ্ট্য সম্পূর্ণরূপে বিনষ্ট হতো। সুতরাং উপরিউক্ত আলোচনা থেকে প্রতীয়মাণ হয় যে প্রজাতির ধারাবাহিকতা রক্ষায় চিত্রে প্রদর্শিত বিভাজনটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
প্রভাষক
রূপনগর মডেল স্কুল ও কলেজ, ঢাকা

বিজ্ঞাপন
শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন