বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মাউশির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যেসব শিক্ষার্থীর জন্মনিবন্ধন নেই (৬ জানুয়ারির মধ্যেও) এবং যাদের ১৬ নম্বরের (ডিজিট) নিবন্ধন নম্বর নেই, তাদের পুনরায় নিবন্ধন করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের জানাতে হবে।

এরপর করোনার টিকার জন্য গ্রহণযোগ্য সব শিক্ষার্থীর প্রতিষ্ঠানভিত্তিক তালিকা ৭ জানুয়ারির মধ্যে সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পাঠানোর বিষয়টি জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা বা থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তারা নিশ্চিত করবেন।

পরে ৮ থেকে ১৫ জানুয়ারির মধ্যে টিকা দেওয়ার নির্ধারিত দিনে ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ার বিষয়টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানেরা নিশ্চিত করবেন। গত ১ নভেম্বর ১২ থেকে ১৮ বছরের কম বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া শুরু হয়েছে।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন