শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সরকারি কলেজগুলোর মধ্যে স্নাতক (সম্মান) এবং স্নাতকোত্তর পড়ানো হয় এমন কলেজগুলোর বিভাগীয় প্রধানের পদটিও চতুর্থ গ্রেডের। আবার অধ্যক্ষ এবং উপাধ্যক্ষের পদও একই গ্রেডের। এ জন্য প্রশাসনিক ভারসাম্য আনা ও শৃঙ্খলার স্বার্থে বিভাগীয় শহরের নয়টি বড় সরকারি কলেজ এবং অন্যান্য জেলার ৮৬টি কলেজসহ মোট ৯৫টি কলেজের অধ্যক্ষ পদের বেতন গ্রেড তৃতীয় গ্রেডে উন্নীত করা হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, পদগুলোর উন্নতি হয়েছে। এখন সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ডের মাধ্যমে পদোন্নতির প্রক্রিয়াগুলো অনুসরণ করে অধ্যাপকদের মধ্যে থেকে এসব পদে নিয়োগ দেওয়া হবে।

উল্লেখ, ২০১৫ সালের জাতীয় বেতনস্কেল অনুযায়ী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরির পরিচয় হয় গ্রেডের ভিত্তিতে। আগে তা হতো প্রথম শ্রেণি, দ্বিতীয় শ্রেণি, তৃতীয় শ্রেণি এবং চতুর্থ শ্রেণি— এই শ্রেণির ভিত্তিতে।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন