সম্মানজনক স্বীকৃতি পেয়েছেন নটর ডেম কলেজের তাহমিদ হামিম চৌধুরী, ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজের মো. ফোয়াদ আল আলম, সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজের এস এম এ নাহিয়ান, নটর ডেম কলেজের মো. আশরাফুল ইসলাম ফাহিম ও ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের নুজহাত আহমেদ দিশা।

তাহমিদের প্রাপ্ত নম্বর ২১। ফোয়াদের প্রাপ্ত নম্বর ২১। নাহিয়ানের প্রাপ্ত নম্বর ১৯। আশরাফুলের প্রাপ্ত নম্বর ১৭। নুজহাতের প্রাপ্ত নম্বর ১৪।

ব্রোঞ্জপদক পাওয়া তাহজিব হোসেন খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘এই অর্জনে আমি দারুণভাবে আনন্দিত।’

এ বছর দলীয়ভাবে ২৫২ নম্বরের মধ্যে ২৫২ নম্বর পেয়ে ৬টি সোনার পদক নিয়ে প্রতিযোগিতায় নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছে চীন। দক্ষিণ কোরিয়া ২০৮ নম্বর নিয়ে দ্বিতীয়। যুক্তরাষ্ট্র ২০৭ নম্বর নিয়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে।

এবারের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ ভারত ১৬৫ নম্বর নিয়ে ২৪তম, শ্রীলঙ্কা ৭৭ নম্বর পেয়ে ৭৩তম, পাকিস্তান ৫৪ নম্বর নিয়ে ৮২তম ও নেপাল ২৭ নম্বর নিয়ে ৮৯তম স্থান অধিকার করেছে। আয়োজক দেশ নরওয়ে ৬১তম স্থান অর্জন করেছে।

বিশ্বজুড়ে করোনা সংক্রমণের কারণে গত দুই বছর আইএমও প্রতিযোগিতা হয়েছিল ভার্চ্যুয়ালি। এবার তা সরাসরি হলো। এবারের আয়োজক দেশ নরওয়ে।

আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে প্রতিটি দেশ থেকে সর্বোচ্চ ছয়জন প্রতিযোগী অংশ নিতে পারে।

প্রতিযোগিতায় পরপর দুই দিন ছয়টি অঙ্ক করতে দেওয়া হয়। ছয়টি অঙ্ক হয় একেবারে মৌলিক ও নতুন। প্রতিটি প্রশ্নের মান ৬ নম্বর করে। প্রতিদিন সময় দেওয়া হয় সাড়ে চার ঘণ্টা।

১০ জুলাই নরওয়ের স্থানীয় সময় বেলা ৩টায় অসলো কনসার্ট হলে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে এবারের আসরের সূচনা হয়। পরের দুই দিন ১১ ও ১২ জুলাই অনুষ্ঠিত হয় পরীক্ষা পর্ব।

২০০৫ সাল থেকে আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ দল। বাংলাদেশ এবার ১৮তম বারের মতো অংশ নিল।

এবারসহ বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা সব মিলিয়ে আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে ১টি সোনা, ৭টি রুপা, ৩২টি ব্রোঞ্জ ও ৩৮টি সম্মানজনক স্বীকৃতি অর্জন করেছে।

ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকতায় ও প্রথম আলোর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটি দেশজুড়ে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্য থেকে নানা ধাপে গণিত দলের সদস্যদের নির্বাচন করে আসছে।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন