শিক্ষা অধিদপ্তর বলছে, সভা অফিস ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ২৫ শতাংশ বিদ্যুৎ ব্যবহার কমাতে হবে এবং নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানপ্রধান তা নিশ্চিত করবেন। গাড়ির জ্বালানির মাসিক প্রাপ্যতা বিদ্যমান সিলিং থেকে ২০ শতাংশ হ্রাস করতে হবে। প্রাধিকারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের তাপমাত্রা ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস নির্ধারণ করতে হবে। যেসব সভা ও অনুষ্ঠান অনলাইনে বা ভার্চ্যুয়ালি করা সম্ভব, সেসব সভা ও অনুষ্ঠানে সশরীর আয়োজন পরিহার করতে হবে। এসব নির্দেশনা অনুযায়ী বিদ্যুৎ ও জ্বালানির ব্যবহার সঠিকভাবে করা হচ্ছে কি না, তা তদারকের জন্য প্রতি অফিস ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দল গঠন করতে বলেছে অধিদপ্তর।

এ ছাড়া এসব নির্দেশনা অনুযায়ী, এ অধিদপ্তরের আওতাধীন সব শিক্ষা অফিস ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির ব্যবহার সঠিকভাবে করা হচ্ছে কি না, তা তদারক করে একটি সাশ্রয়ী প্রতিবেদন প্রতি মাসের ৩ তারিখের মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মনিটরিং অ্যান্ড ইভাল্যুয়েশন উইংয়ে পাঠাতে আঞ্চলিক পরিচালক ও উপপরিচালকদের বলা হয়েছে।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন