এসব শিক্ষার্থী ২০২১ এবং ২০২২ সালে আন্তর্জাতিক জিসিএসইর বিষয়গুলোতে অন্তত সাতটি বিষয়ে ‘এ’ গ্রেড পেয়েছে এবং ‘এ’ লেভেল পরীক্ষায় চারটি বিষয়ে ‘এ’ গ্রেড পেয়েছে। তাদের মধ্যে এমন কিছু শিক্ষার্থীও রয়েছে যারা আন্তর্জাতিক জিসিএসইতে ১১টি বিষয়ে ‘এ’ গ্রেড এবং এ লেভেল পরীক্ষায় ৬টি বিষয়ে ‘এ’ গ্রেড পেয়েছে।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন,  ছাত্রছাত্রীরা তাদের আত্মবিশ্বাস এবং দক্ষতার মাধ্যমে বাস্তব জীবনে কাজ করতে সক্ষম হবে। চমৎকার ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে প্রস্তুত হওয়ার জন্য এখনই সেরা সময়। আগামীর নেতৃত্ব দেওয়ার  জন্য ছাত্রছাত্রীদের অবশ্যই তাদের জ্ঞানের প্রয়োগ করতে হবে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট চ্যাটারটন ডিকসন বলেন, শিক্ষা একটি দেশের উন্নয়নের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তরুণদের জন্য আমাদের অনেক প্রকল্প রয়েছে। এই অর্জন একজন শিক্ষার্থীর ভবিষ্যতের জন্য দুর্দান্ত বিনিয়োগ।

ব্রিটিশ কাউন্সিলের রিজিওনাল এক্সামস ডিরেক্টর হ্যারিয়েট গার্ডনার বলেন, আমরা ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে সরাসরি কাজ করছি। আমরা তাদের ইংরেজি শেখার জন্য, নেটওয়ার্ক তৈরি এবং তাদের সৃজনশীল ধারণাগুলো খুঁজে বের করতে সহযোগিতা করছি। ব্রিটিশ কাউন্সিলের পরীক্ষা পরিষেবাগুলো বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় এবং নিয়োগকর্তাদের দ্বারা স্বীকৃত।

পিয়ারসন স্কুল কোয়ালিফিকেশনসের ভাইস প্রেসিডেন্ট এমা হোয়েল বলেন, কোভিড-১৯–এর চ্যালেঞ্জিং সময়েও উদ্ভাবনী উপায়ে পাঠদান কার্যক্রম পরিচালনা করায় সব শিক্ষক, স্কুল ও  সহকর্মীদের ধন্যবাদ।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন পিয়ারসনের এমপ্লয়াবিলিটি অ্যান্ড কোয়ালিফিকেশনস ডিরেক্টর প্রেমিলা পলরাজ, ব্রিটিশ কাউন্সিলের কান্ট্রি এক্সামস ডিরেক্টর জিম ও’নিল, পিয়ারসন বাংলাদেশ ও নেপালের রিজিওনাল ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার আবদুল্লাহ আল মামুন, ব্রিটিশ কাউন্সিলের ডিরেক্টর অপারেশনস এক্সামিনেশনস জুনায়েদ আহমেদ প্রমুখ।

ব্রিটিশ কাউন্সিল এবং পিয়ারসনের কর্মকর্তারা আশা করেন, এ ধরনের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং স্কুলগুলো ভবিষ্যতে আরও বেশি সাফল্য অর্জনে উৎসাহিত হবে। পিয়ারসন কোয়ালিফিকেশন অর্জন করতে আগ্রহী এমন দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম প্রধান দেশ। এখানে বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়ে উত্তীর্ণ হন এবং তাদের অনেকেই উচ্চশিক্ষা লাভের জন্য বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে যান।

উল্লেখ্য ব্রিটিশ কাউন্সিল যুক্তরাজ্যের সাংস্কৃতিক সম্পর্ক এবং শিক্ষার সুযোগের জন্য নিয়োজিত আন্তর্জাতিক সংস্থা। এটি বর্তমানে শিল্প ও সংস্কৃতি, ইংরেজি ভাষা, শিক্ষা এবং নাগরিক সমাজের ক্ষেত্রে ১০০টিরও বেশি দেশের সঙ্গে কাজ করে। বিজ্ঞপ্তি