default-image

দেশের সাতটি সরকারি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছপদ্ধতিতে স্নাতকে ভর্তি পরীক্ষার জন্য আগামীকাল ২ মে থেকে আবেদন শুরু হবে। কৃষিগুচ্ছের অধীনে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৩১ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য আবেদন শেষ হবে আগামী ১০ জুন।

আবেদনের যোগ্যতা

২০১৭/২০১৮ সালে এসএসসি/সমমান এবং ২০১৯/২০২০ সালে এইচএসসি/সমমানের পরীক্ষায় যাঁরা বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জীববিজ্ঞান, রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান, গণিত বিষয়সহ উত্তীর্ণ হয়েছে, কেবল তাঁরাই আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনকারীর এসএসসি/সমমান এবং এইচএসসি/সমমানের পরীক্ষায় উভয় ক্ষেত্রে প্রতিটিতে চতুর্থ বিষয় ব্যতীত ন্যূনতম জিপিএ–৩.৫০ এবং সর্বমোট ন্যূনতম জিপিএ–৮.০০ থাকতে হবে। জিসিই ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেল পাসকৃত প্রার্থীর ক্ষেত্রে ‘ও’ লেভেল পরীক্ষায় অন্তত ৫টি বিষয়ে এবং ‘এ’ লেভেল পরীক্ষায় বিজ্ঞানের অন্তত ২টি বিষয়ে উত্তীর্ণ হতে হবে। উভয় পরীক্ষার প্রতিটিতে ন্যূনতম জিপিএ–৩.৫০ এবং সর্বমোট জিপিএ–৮.০০ থাকতে হবে।

মোট আসনসংখ্যার ১০ গুণ প্রার্থীকে এসএসসি/সমমান ও এইচএসসি/সমমান পরীক্ষার জীববিজ্ঞান, রসায়ন, পদার্থবিজ্ঞান ও গণিত বিষয়ের প্রাপ্ত মোট নম্বরের ভিত্তিতে মেধাক্রম অনুযায়ী ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হবে।

default-image

আবেদন ফি

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার ফি এক হাজার টাকা। নগদ, বিকাশ বা রকেটের মাধ্যমে জমা দিতে হবে এ টাকা। যেসব প্রার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাবেন না, তাঁদের আবেদনসংক্রান্ত প্রসেসিং ফি বাবদ ৩০০ টাকা কেটে রেখে অবশিষ্ট ৭০০ টাকা তাঁদের প্রদত্ত হিসাব নম্বরে ফেরত দেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

লিখিত নির্বাচনী পরীক্ষা

এমসিকিউ পদ্ধতিতে ১০০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৩১ জুলাই বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সাতটি বিশ্ববিদ্যালয়ে একযোগে অনুষ্ঠিত হবে। এইচএসসি/সমমান পর্যায়ের ইংরেজিতে ১০, প্রাণিবিজ্ঞানে ১৫, উদ্ভিদবিজ্ঞানে ১৫, পদার্থবিজ্ঞানে ২০, রসায়নে ২০ এবং গণিতে ২০ নম্বরের প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ নম্বর কাটা যাবে।

মেধা স্কোর

মোট ১৫০ নম্বরের ভিত্তিতে ফলাফল প্রস্তুত করা হবে। ভর্তি পরীক্ষার ১০০ নম্বরের সঙ্গে এসএসসি/সমমানের জন্য ২৫ এবং এইচএসসি/সমমানের জন্য ২৫ নম্বর যোগ করে ফলাফল প্রস্তুত করে মেধা ও অপেক্ষমাণ তালিকা তৈরি করা হবে।

ভর্তি পরীক্ষার ফল

ভর্তির ফলাফল প্রকাশ করা হবে আগামী ৫ আগস্ট। ভর্তি আবেদনের সব তথ্য পাওয়া যাবে www.admission-agri.org–তে।

ভর্তি আসন কত

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ১১১৬, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ৭০৪, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় ২৪৫, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ৪৩১, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ১৫০, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ৪৪৩, এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ৩৩০। সব মিলিয়ে এই সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট আসন ৩ হাজার ৪১৯টি।

এবারের এ ভর্তি পরীক্ষা কার্যক্রমে গাজীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় লিড ইউনিভার্সিটি হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে।

ভর্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন