default-image

বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়। এটি ১৯৯৩ সালে যাত্রা শুরু করে। নর্থ সাউথের শিক্ষা কার্যক্রম আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন। রিসার্চসংক্রান্ত পরামর্শ দিতে বিশ্বের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়ে গঠন করা হয়েছে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাডভাইজারি বোর্ড। বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক বিভাগই পিএইচডি ডিগ্রি দেওয়ার মতো পর্যায়ে উপনীত হয়েছে। এখান থেকে শিক্ষা শেষ করে অনেকেই জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে উচ্চতর ও দায়িত্বশীল পদে কর্মরত। নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে উচ্চশিক্ষার শ্রেষ্ঠত্বের কেন্দ্র হিসেবে জায়গা নিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শীর্ষ নীতিনির্ধারণ এবং অনুমোদনের সংস্থা। ট্রাস্টি বোর্ডের বর্তমান চেয়ারম্যান এম এ কাশেম।

শিক্ষা কার্যক্রম

মোট চারটি স্কুলের অধীনে বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয়। স্কুলগুলো হলো স্কুল অব বিজনেস, স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অ্যাপ্লায়েড সায়েন্স, স্কুল অব লাইফ সায়েন্স এবং স্কুল অব আর্টস অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্সেস।
স্কুল অব বিজনেসের অধীনে পরিচালিত কোর্সগুলো—ব্যাচেলর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ), মাস্টার অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ), এক্সিকিউটিভ এমবিএ (ইএমবিএ)। স্কুল অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অ্যাপ্লায়েড সায়েন্সের অধীনে দুটি বিভাগ আছে—কম্পিউটার সায়েন্স, ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ এবং পরিবেশবিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগ। এ ছাড়া কম্পিউটার সায়েন্সে রয়েছে ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন কম্পিউটার সায়েন্স, ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে রয়েছে ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং, ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, মাস্টার অব সায়েন্স ইন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, মাস্টার অব সায়েন্স ইন ইলেকট্রনিকস অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং।
পরিবেশবিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিভাগ: ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স, ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন এনভায়রনমেন্টাল ম্যানেজমেন্ট, ব্যাচেলর অব আর্টস ইন এনভায়রনমেন্টাল স্টাডিজ, এমএসসি ইন রিসোর্স অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ম্যানেজমেন্ট।

বিজ্ঞাপন

স্কুল অব লাইফ সায়েন্স: ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন মাইক্রোবায়োলজি, ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন বায়োকেমিস্ট্রি অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি, মাস্টার্স ইন পাবলিক হেলথ, মাস্টার্স ইন বায়োটেকনোলজি।

স্কুল অব আর্টস অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্সেস: ব্যাচেলর অব আর্টস ইন ইংলিশ, ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন ইকোনমিকস, মাস্টার অব সায়েন্স ইন ইকোনমিকস, মাস্টার ইন ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ, মাস্টার ইন পাবলিক পলিসি অ্যান্ড গভর্ন্যান্স।

ভিশন ও মিশন

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠত্বের কেন্দ্র হবে। এটি জাতীয় ও বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি অর্জন করার জন্য কাজ করছে এবং বিশ্বের বিভিন্ন স্থান থেকে শিক্ষার্থী, অনুষদ ও কর্মীরা এখানে পড়তে আসবেন। বিশ্ববিদ্যালয়টির লক্ষ্য হলো নির্বাচিত বিভাগগুলোতে যোগ্য স্নাতকদের তৈরি করা, যাঁদের কর্মজীবন হবে এবং উন্নত পড়াশোনায় নিয়োজিত থাকবেন।

শিক্ষার্থীদের গুণাবলি

সর্বদা জ্ঞান আহরণে নিয়োজিত এবং দক্ষ নেতা হবেন। মৌখিক, লিখিত ও যোগাযোগে হবেন দক্ষ। যুক্তিশীল চিন্তক ও দক্ষ বিশ্লেষক। নৈতিকভাবে ও সামাজিকভাবে দায়বদ্ধ। বৈচিত্র্য ও সহনশীলতায় সেরা। বিশ্বস্ত সচেতনতায় এবং সামাজিক ন্যায়বিচারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের লক্ষ্য

সমস্ত স্নাতক প্রোগ্রামে সাধারণ শিক্ষার সমন্বয়ে সামাজিকভাবে প্রাসঙ্গিক প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম পরিচালনা করা। ভালো ও যোগ্য শিক্ষার্থী নিয়োগ এবং স্নাতক ডিগ্রিসহ ভালো প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত অনুষদসহ যোগ্য কর্মীদের নিয়োগ দেওয়া। কার্যকর শিক্ষা, মানসম্পন্ন গবেষণা এবং পরিষেবা প্রচার। শ্রেণিকক্ষ, ল্যাব এবং অত্যাধুনিক শিক্ষামূলক প্রযুক্তিসহ গ্রন্থাগার এবং উপযুক্ত শারীরিক সুবিধা সরবরাহ। সহপাঠ্যক্রমিক এবং অতিরিক্ত পাঠ্যক্রমিক ক্রিয়াকলাপ সমর্থন। প্রাতিষ্ঠানিক স্বাধীনতা ও অনুষদ-কর্মীদের অংশগ্রহণকে উত্সাহিত করে সুশাসন ও প্রশাসনের অনুশীলন করা। আমাদের প্রাক্তন শিক্ষার্থী এবং সম্প্রদায়ের নেতাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বাস্তবায়ন।

আর্থিক সহায়তা বা বৃত্তি

নর্থ সাউথে প্রাতিষ্ঠানিক স্কলারশিপ, বেতন মওকুফ, শিক্ষাবৃত্তি এবং শিক্ষার্থীর কর্মসংস্থান দেওয়ার মাধ্যমে প্রায় ১৮ লাখ টাকার আর্থিক সহায়তা সরবরাহ করে। প্রায় ১ হাজার ৩০০ জন মুক্তিযোদ্ধা সন্তানকে সম্পূর্ণ বৃত্তিতে অধ্যয়নের সুযোগ দেওয়া হয়েছে। করোনা মহামারি চলাকালীন যাঁদের মা-বাবা মারা গেছেন, তাঁদের জন্য বিশেষ বৃত্তি দেওয়া হয়েছে। এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকে আজ অবধি শিক্ষার্থীদের জন্য ১৫০ কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে। গত ১২ মাসে মেধাবী ও অভাবী শিক্ষার্থীদের জন্য বৃত্তি হিসেবে প্রায় ১৮ কোটি টাকা প্রদান করা হয়েছে।
লাইব্রেরি

default-image

লাইব্রেরিতে বর্তমানে ৪৪ হাজার ৫০০টি বই, রিপোর্টস এবং বাউন্ড জার্নালস, সিডি রম, বুকস অ্যান্ড ডেটাবেইস ১ হাজার ৮৭৭টি, ১২৩টি ভিডিও, ১৫৯ অডিও ক্যাসেট এবং ১৩৯টি ডিভিডি রয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বসুন্ধরা ক্যাম্পাসের দক্ষিণ-পূর্ব কোণে ৬ তলাবিশিষ্ট ৭০ হাজার বর্গফুট জায়গা নিয়ে অবস্থিত।
এ লাইব্রেরি ১২টি শাখায় বিভক্ত হয়ে শিক্ষার্থীদের সেবা প্রদান করছে। এটি সেমিস্টার ব্রেকের সময় একটি শিফটে সকাল নয়টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত খোলা থাকে। সরকারি ছুটি ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক অন্যান্য ছুটির দিনে লাইব্রেরি বন্ধ থাকে। লাইব্রেরিতে একসঙ্গে ১ হাজার ২০০ জন শিক্ষার্থী বসে পড়ার ব্যবস্থা রয়েছে। লাইব্রেরির সাইবার সেন্টারের ব্রডব্যান্ড কানেকশন, ওয়াই-ফাইসহ ৮০টি কম্পিউটার রয়েছে।

ক্লাব

ইয়াং এন্ট্রাপ্রেনিউরস সোসাইটি, ডিবেটিং ক্লাব, সংস্কৃতি সংগঠন, গেমস অ্যান্ড স্পোর্টস ক্লাব ফিনে অ্যান্ড ড্রামা ক্লাব, ইয়াং ইকোনসিস ফোরাম, এমবিএ ক্লাব, কম্পিউটার ল্যাব, ফটোগ্রাফি ক্লাব, আর্থ ক্লাব, ইংলিশ ক্লাব, মিডিয়া ক্লাব ও সোশ্যাল সার্ভিস ক্লাব নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে সরব রয়েছে।

সাইবার সেন্টার

শিক্ষার্থীদের জন্য সাইবার সেন্টারের ব্যবস্থা রয়েছে। সাইবার সেন্টারটি বিশ্ববিদ্যালয়ের লাইব্রেরিতে অবস্থিত। সাইবার সেন্টারে পেন্টিয়াম ফোর ব্র্যান্ডের ৫১২ কিলোবাইট ব্রডব্যান্ড সংযোগসহ ২০টি কম্পিউটার রয়েছে। এটি সকাল নয়টা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত খোলা থাকে। শুক্রবার ও অন্যান্য সরকারি ছুটির দিনগুলোতে সাইবার সেন্টার বন্ধ থাকে। সাইবার সেন্টারে শিক্ষার্থীরা ডকুমেন্ট প্রিন্ট, ডাউনলোড ও সেভ করতে পারে। এ ছাড়া এখানে সিডি রাইটিং সুবিধাও রয়েছে। সাইবারের সুবিধা ও সেবা পেতে শিক্ষার্থীদের কোনো ধরনের চার্জ পরিশোধ করতে হয় না।

বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন: http://www.northsouth.edu/

বিজ্ঞাপন
উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন