default-image

চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পাওয়া অধ্যাপক ডা. মো. ইসমাইল খান আরও চার বছরের জন্য পুনঃনিয়োগ পেয়েছেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদ তাঁকে নিয়োগ দিয়েছেন।

গতকাল সোমবার স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আবদুল কাদের স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে তাঁর পুনঃনিয়োগের বিষয়টি জানানো হয়। এতে বলা হয়, নিয়োগের সময় থেকে তিনি ভিসি হিসেবে চার বছর পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করবেন। আগের মেয়াদে যেসব দায়দায়িত্ব পালন করতেন, বিশ্ববিদ্যালয় আইন অনুযায়ী তা পালন করতে পারবেন এবং আগের মতো বেতন-ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা সবই পাবেন।

অধ্যাপক ডা. মো. ইসমাইল খান চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের (চমেক) সাবেক শিক্ষার্থী। তাঁর জন্ম চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের মধ্যম মঘাদিয়া গ্রামের শান্তা কাজীর বাড়িতে। বাবা মরহুম মো. আকরাম খান ও মা মরহুমা হোসনে আরা বেগম। মিরসরাই পাইলট উচ্চবিদ্যালয় থেকে ১৯৭৫ সালে এসএসসি ও ১৯৭৭ সালে চট্টগ্রাম কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার পর তিনি ভর্তি হন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে। সেখান থেকে ১৯৮৪ সালে এমবিবিএস ডিগ্রি সম্পন্ন করার পর সরকারি চাকরিতে যোগ দেন।

বিজ্ঞাপন
default-image

মো. ইসমাইল খান ১৯৮৮ সালে চমেকে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষকতা শুরু করেন। ফার্মাকোলজিতে এমফিল করা এই চিকিৎসক সিডনি ইউনিভার্সিটি অব নিউ সাউথ ওয়েলস থেকে মেডিকেল এডুকেশনে (এমই) পোস্টগ্র্যাজুয়েট ডিগ্রি নেন। দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজের পাশাপাশি মালয়েশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্সে তিন বছর শিক্ষকতা করেন তিনি। ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফার্মাকোলজি বিভাগীয় প্রধানের পাশাপাশি উপাধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন চার বছর। ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি অব মেডিসিনের নির্বাচিত ডিন হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি।

উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন