বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ বুধবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনে অবস্থিত আবদুল মতিন চৌধুরী ভার্চ্যুয়াল শ্রেণিকক্ষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ‘ক’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করেন উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য (শিক্ষা) এ এস এম মাকসুদ কামাল, ‘ক’ ইউনিট ভর্তি পরীক্ষার প্রধান সমন্বয়কারী মিহির লাল সাহা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ক’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষা দেওয়া শিক্ষার্থীরা এখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে (https://admissions.eis.du.ac.bd) গিয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে ফলাফল জানতে পারছেন। এ ছাড়া রবি, এয়ারটেল, বাংলালিংক বা টেলিটক নম্বর থেকে ‘DU KA Roll No’ ফরম্যাটে ১৬৩২১ নম্বরে এসএমএস পাঠিয়েও ফলাফল জানা যাচ্ছে।

প্রকাশিত ফলাফল অনুযায়ী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটে এবার প্রথম হয়েছেন বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের ছাত্র মেফতাউল আলম সিয়াম। তাঁর মোট নম্বর ১১৭ দশমিক ৭৫ (মূল পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে ৯৭ দশমিক ৭৫)। দ্বিতীয় হয়েছেন চট্টগ্রাম কলেজের ছাত্র আসিফ করিম। তাঁর মোট নম্বর ১১২ দশমিক ৭৫ (মূল পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে ৯২ দশমিক ৭৫)। তৃতীয় হয়েছেন খুলনা পাবলিক কলেজের ছাত্র নিত্য আনন্দ বিশ্বাস। তাঁর মোট নম্বর ১১১ দশমিক ৯৫ (মূল পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে ৯১ দশমিক ৯৫)।

‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সব শিক্ষার্থীকে আগামী ৯ নভেম্বর বেলা ৩টা থেকে ২১ নভেম্বর বিকেল ৫টা পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে বিস্তারিত ফরম ও বিষয় পছন্দক্রম ফরম পূরণ করতে হবে। কোটায় আবেদনকারীদের ৪ থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট কোটার ফরম জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন কার্যালয় থেকে সংগ্রহ করতে হবে। তা যথাযথভাবে পূরণ করে ওই সময়ের মধ্যে ডিন কার্যালয়ে জমা দিতে হবে।

কারও ফলাফল নিয়ে সন্দেহ থাকলে তা নিরীক্ষার জন্য ১ হাজার টাকা ফি দেওয়া সাপেক্ষে ৪ থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত জীববিজ্ঞান অনুষদের ডিন কার্যালয়ে আবেদন করা যাবে।

‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা হয়েছিল গত ১ অক্টোবর। এই ইউনিটের মাধ্যমে এবার ১ হাজার ৮১৫ জন শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানবিষয়ক বিভিন্ন বিভাগ-ইনস্টিটিউটে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবেন।

‘ক’ ইউনিটের ফল প্রকাশের সময় উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, ভর্তিবিষয়ক বিস্তারিত তথ্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট ও সংশ্লিষ্ট অনুষদের ভর্তি নির্দেশিকায় পাওয়া যাবে। এক সপ্তাহ বা দশ দিনের মধ্যে বাকি ইউনিটগুলোর (গ ও ঘ) ফলাফলও প্রকাশ করা হবে। ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্যও বিশ্ববিদ্যালয়ের করা ক্ষতি পুনরুদ্ধার পরিকল্পনা প্রযোজ্য হবে।

করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘ দেড় বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ থাকায় সম্ভাব্য যে একাডেমিক ক্ষতি হয়েছে, তা পোষাতে কর্তৃপক্ষ ক্ষতি পুনরুদ্ধার পরিকল্পনা শীর্ষক একটি বিস্তৃত পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। পরিকল্পনার আওতায় সেমিস্টার পদ্ধতির ছয় মাসের কোর্স পরীক্ষাসহ চার মাসে শেষ করা হবে। অন্যদিকে, কোর্স পদ্ধতির ক্ষেত্রে ১২ মাসের পরিবর্তে ৮ মাসে বছর শেষ করা হবে। তবে কোনোভাবেই পাঠ্যসূচি সংকুচিত করা হবে না। প্রয়োজনে অতিরিক্ত ক্লাস নেওয়া হবে। এমনকি ছুটির দিন শনিবারেও ক্লাস নিতে পারবে বিভাগ-ইনস্টিটিউটগুলো।

‘ক’ ইউনিটের মধ্য দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এবারের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়েছিল। এবারই প্রথমবারের মতো ঢাকাসহ দেশের আটটি বিভাগীয় শহরের প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা হয়।

উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন