বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

৩. অ্যাডভেঞ্চার ফিল্মমেকিং

পাহাড়ি পথ ধরে শাঁই শাঁই করে ছুটছে সাইকেল, প্যারাস্যুট নিয়ে উড়ন্ত বিমান থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ছেন কোনো তরুণ, কিংবা সাগরে ডুব দিয়ে সাঁতার কাটছেন মাছের সঙ্গে—রোমাঞ্চকর অভিযানের এমন সব ভিডিও চিত্র দেখার মধ্যে একটা আলাদা আনন্দ আছে। ইদানীং এ ধরনের ভিডিও চাহিদা বা বাজারও বেশ ভালো। তাই অ্যাডভেঞ্চার ফিল্মমেকিং বিষয়ে স্নাতক করার সুযোগ দিচ্ছে যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব ওয়েলস ট্রিনিটি সেইন্ড ডেভিড। ভ্রমণ বা অ্যাডভেঞ্চার–সংক্রান্ত স্থিরচিত্র ও চলচ্চিত্রের খুঁটিনাটি হাতেকলমে শেখার সুযোগ হয় এই কোর্সে। কীভাবে এক্সট্রিম স্পোর্ট, জলজ বা বন্যজীবনের চিত্র ধারণ করতে হয়, তা-ও কোর্সের শিক্ষার অন্তর্ভুক্ত।

৪. এন্টারটেইনমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ডিজাইন

বড় বড় থিম পার্ক, ক্যাসিনো, সিনেমার বিশাল সব সেট, এগুলো কীভাবে তৈরি হয় কখনো ভেবেছেন? ভাবতে হবে, যদি এন্টারটেইনমেন্ট ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ডিজাইন বিষয়ে পড়েন। যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব লাস ভেগাসে আছে এই বিষয়ে পড়ার সুযোগ। কীভাবে মানুষকে বিনোদন দেওয়া যায়, কীভাবে চলচ্চিত্রের সেট কিংবা থিম পার্কের রাইডের নকশা করতে হয়, এ–সংক্রান্ত প্রকৌশল ও নকশাবিদ্যা আপনি অর্জন করতে পারেন এই স্নাতক পর্যায়ের প্রোগ্রামে।

৫. অশ্ববিজ্ঞান

বিজ্ঞানের কত শাখার নামই তো আমরা শুনেছি। তাই বলে অশ্ববিজ্ঞান! হ্যাঁ, ঘোড়া নিয়ে স্নাতক করার সুযোগ আছে জার্মানির কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে। এটি মূলত ভেটেরিনারি মেডিসিন অনুষদভুক্ত একটি বিভাগ, যেখানে ঘোড়ার প্রজাতি, ঘোড়া পালন, যথাযথ দেখাশোনা, ঘোড়ার প্রজনন, ইত্যাদি সম্পর্কে উচ্চতর শিক্ষা দেওয়া হয়। জার্মানির ওসনাব্রুক বিশ্ববিদ্যালয়ে আপনি ঘোড়া ব্যবস্থাপনার ওপর ব্যাচেলর ডিগ্রি করতে পারেন। এ ছাড়া ইউনিভার্সিটি অব গটিনজেনে আছে অশ্ববিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর করার সুযোগ।

৬. খেলা এবং খেলার মাধ্যমে শেখা

শিশুরা তো খেলতে খেলতেই শেখে। কী ধরনের খেলনা থেকে শিশুরা কী কী শিখতে পারে, সে সংক্রান্ত পড়ালেখাই হলো ‘টয় অ্যান্ড লার্নিং ডিজাইন’। প্রতিটা খেলনার পেছনেই রীতিমতো গবেষণা থাকে। জার্মানির ইউনিভার্সিটি অব আর্ট অ্যান্ড ডিজাইন হাল্লেতে আপনি টয় অ্যান্ড লার্নিং ডিজাইনে স্নাতক করতে পারবেন। খেলার জায়গা কেমন হওয়া উচিত, বাচ্চাদের কী ধরনের খেলাধুলা করা দরকার—এসবও পড়ানো হয় বিষয়টিতে।

৭. মিউজিকথেরাপি

যুক্তরাষ্ট্রের বার্কলে কলেজ অব মিউজিক থেকে শুরু করে অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই আছে মিউজিক থেরাপি নিয়ে পড়ার সুযোগ। সুর বা গানের মাধ্যমে মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগ তৈরি, অনুপ্রাণিত করা, মনের ক্ষত সারানো, এসবই মিউজিক থেরাপির অন্তর্ভুক্ত। কানাডার অ্যাকাডিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ও ‘মিউজিক থেরাপি’ বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি দেয়। সংগীতের প্রতি ভালোবাসা কাজে লাগিয়ে মানসিক চাপ নিরসন, স্মৃতিশক্তি বাড়ানো, হতাশা দূর করাসহ নানা কিছু শিক্ষার্থীরা শেখেন এই কোর্সে। মনের সঙ্গে মিউজিকের সম্পর্ক, গান কম্পোজ করা ইত্যাদিও কোর্সটির অংশ।

৮. সার্কাস ও শারীরিক দক্ষতা

বিনোদনের এক প্রাচীন মাধ্যম হলো সার্কাস। একদল প্রশিক্ষিত ব্যক্তি শরীরচর্চার মাধ্যমে নিজেদের তৈরি করেন এবং মঞ্চে তাঁদের কারিকুরি দেখান। যুক্তরাজ্যের বাথ স্পা ইউনিভার্সিটিতে এই সার্কাসের ওপরই স্নাতক ডিগ্রি নেওয়ার সুযোগ আছে। সার্কাস আর্টস ফাউন্ডেশন স্টাডিজ, পারফরম্যান্স এবং মুভমেন্ট স্টাডিজ, সার্কাস আর্ট স্পেশালাইজেশন এবং ফিজিওলজি, সার্কাসে প্রযুক্তিগত দিকগুলির ভূমিকা ইত্যাদি বিষয় পড়ানো হয় এই কোর্সে।

৯. বেকারি বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা

বেকারি বিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনায় আপনাকে যে স্রেফ বেকিংয়ের নানা কৌশল শেখানো হবে, তা নয়। যুক্তরাষ্ট্রের কানসাস স্টেট ইউনিভার্সিটির এই স্নাতক প্রোগ্রামে আপনি চকলেট ও কনফেকশনারির নানা পণ্য উৎপাদনের আদ্যোপান্ত শিখবেন। বেকিং সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা তো পাবেনই। তৃতীয় বর্ষে আছে বেকিংশিল্পের উদ্ভাবন নিয়ে পড়াশোনার সুযোগ। বেকিংয়ের পেছনে যেসব রাসায়নিক বিক্রিয়া কাজ করে, উৎপাদিত পণ্যে কোন স্বাদ কী জন্যেপাওয়া যায়, কীভাবে এই শিল্পের পরিধি আরও বাড়ানো যায়—সবই পড়ানো হয় এই বিষয়ে।

১০. কমিকস

জাপানকে বলা যায় অ্যানিমেশনের ‘স্বর্গরাজ্য’। আর আপনি যদি একজন অ্যানিমে ভক্ত হন, তাহলে তো জাপানি কার্টুন-অ্যানিমেশনের সঙ্গে আপনাকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার কিছু নেই। জাপানের কিয়োটো সেকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শেখানো হয় কমিকসের কলাকৌশল। বিশ্ববিদ্যালয়টি ২০০৬ সালে কমিকস আঁকা ও পরিকল্পনা শেখানোর জন্য অনুষদ প্রতিষ্ঠা করে। তখন থেকে এটি কমিকসশিল্পের গবেষণার জন্য একটি বৈশ্বিক কেন্দ্র হয়ে উঠে। এই বিভাগে রয়েছে কার্টুন আর্ট, কমিক আর্ট, ক্যারেক্টার ডিজাইন থেকে শুরু করে নতুন প্রজন্মের কার্টুন ডিজাইনিং শেখার সুযোগ।

উচ্চশিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন