default-image

করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী কিছু সময় স্থগিত থাকার পর ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশে পুনরায় শুরু হলো কম্পিউটারনির্ভর ইন্টারন্যাশনাল ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ টেস্টিং সিস্টেম আইইএলটিএস পরীক্ষা।

ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, পরীক্ষাকেন্দ্রগুলোয় বিশ্ব মান ও বাংলাদেশ সরকারের সব সুরক্ষা ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা হয়েছে। পরীক্ষার্থীদের ই–মেইলের মাধ্যমে স্বাস্থ্যগত সমস্যা অবহিত করার ফর্মে সই, নাক ও মুখ ঢাকা মাস্ক পরিধানের আবশ্যকতা এবং পরীক্ষাকেন্দ্রে (টেস্ট সেন্টার) তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধির ব্যাপারে আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। টেস্ট সেন্টারে সব সামগ্রী যেমন আসবাব, স্টেশনারি ও অন্যান্য সরঞ্জাম অত্যন্ত সচেতনতার সঙ্গে, প্রতি টেস্টের পূর্বে স্যানিটাইস করা হয়।


আইইএলটিএস পরীক্ষা কিছুদিন স্থগিত ছিল। আবার কম্পিউটারনির্ভর পরীক্ষা শুরু হলো। ব্রিটিশ কাউন্সিলের পক্ষ থেকে আইইএলটিএসের চারটি বিভাগের প্রস্তুতিবিষয়ক ভিডিও, টিপস এবং ট্রিক্স, অনুশীলন সামগ্রীসহ বিভিন্ন রিসোর্সেস অনলাইনে বিনা মূল্যে উন্মুক্ত ছিল, যা ব্যবহার করে পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীরা অনায়াসে বাসায় বসেই পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে পেরেছেন। এ সময় পরীক্ষা ট্রান্সফার বা রিফান্ডের ব্যাপারেও সব সুবিধা প্রদান করা হয়েছে। ব্রিটিশ কাউন্সিলের মাধ্যমে আইইএলটিএসে রেজিস্ট্রেশন করলে পরীক্ষায় অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীরা এসব সুবিধা এখনো উপভোগ করতে পারবেন।

বিজ্ঞাপন

We have resumed IELTS in Bangladesh. We are taking extra measures to ensure your safety on the test day, including...

Posted by British Council Bangladesh on Saturday, September 19, 2020

ব্রিটিশ কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, কোভিড–১৯–এর কারণে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে সেন্টারগুলোর ধারণক্ষমতা কিছুটা হ্রাস করা হয়েছে, তাই প্রয়োজন অনুযায়ী পরীক্ষা নেওয়ার তারিখের সংখ্যাও শিগগিরই বৃদ্ধি করা হবে। বর্তমানে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটে আবার আইইএলটিএস পরীক্ষা শুরু হয়েছে এবং শিগগিরই খুলনা, কুমিল্লা ও রাজশাহীতেও পর্যায়ক্রমে পুনরায় পরীক্ষা শুরু হবে।


গত বছর কম্পিউটারনির্ভর ইন্টারন্যাশনাল ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ টেস্টিং সিস্টেম (আইইএলটিএস) ব্যবস্থা চালু করেছিল ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশ। তখন ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটে এই পদ্ধতিতে পরীক্ষা দেওয়া যেত। ওই সময় ব্রিটিশ কাউন্সিল এক বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছিল, নতুন কম্পিউটার সল্যুশনটি বেশ নিরাপদ। উন্নত মান ও পরিচালনাসংক্রান্ত সুবিধা দিতে সক্ষম। কাগজনির্ভর পরীক্ষার পরিবর্তে কম্পিউটারনির্ভর পদ্ধতিটি হচ্ছে পরীক্ষার্থীদের নতুন অপশন। পরীক্ষার্থীরা এখন নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী সময় ও তারিখ নির্বাচন করতে পারবেন, যা তাঁদের জন্য অধিক কার্যকর। পরীক্ষা দেওয়ার পাঁচ থেকে সাত দিনের মধ্যে আইইএলটিএসের ফল পাওয়া যাবে। কম্পিউটারনির্ভর পদ্ধতিতে লিসেনিং, রাইটিং ও রিডিং বিভাগগুলো একইভাবে এবং একই কাঠামোতে দিতে হবে।

কেবল স্পিকিং পরীক্ষাটি আগের মতোই কোনো প্রশিক্ষিত আইইএলটিএস পরীক্ষকের সঙ্গে সামনাসামনি হবে। কেননা, এটি পরীক্ষার্থীর কথা বলার দক্ষতা মূল্যায়ন করার সবচেয়ে কার্যকর উপায়। কাগজ কিংবা কম্পিউটারনির্ভর, দুটি পদ্ধতিই ইংরেজি ভাষার দক্ষতা যাচাই পরীক্ষার ক্ষেত্রে সমানভাবে নির্ভরযোগ্য ও বিশ্বব্যাপী গ্রহণযোগ্য। যেসব পরীক্ষার্থী কম্পিউটারনির্ভর আইইএলটিএস পদ্ধতি নির্বাচন করবেন, তাঁদের কম্পিউটারে পরীক্ষা দেওয়ার সহায়ক উপকরণ দেওয়া হবে।
২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ায় প্রথম কম্পিউটারনির্ভর আইইএলটিএস পদ্ধতি চালু করা হয়। পর্যায়ক্রমে বিশ্বব্যাপী আইইএলটিএস নেটওয়ার্কে তা চালু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0