কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‍্যাঙ্কিংস: সাসটেইনেবিলিটি ২০২৩ তালিকার সেরা ১০ বিশ্ববিদ্যালয় হলো ক্রমানুসারে—ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া, বার্কলে (ইউসিবি); ইউনিভার্সিটি অব টরন্টো; ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়া; ইউনিভার্সিটি অব এডিনবরা; ইউনিভার্সিটি অব নিউ সাউথ ওয়েলস; ইউনিভার্সিটি অব সিডনি; ইউনিভার্সিটি অব টোকিও; ইউনিভার্সিটি অব পেনসিলভানিয়া; ইয়েল ইউনিভার্সিটি ও ইউনিভার্সিটি অব অকল্যান্ড।

টানা পঞ্চমবার কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‍্যাঙ্কিংয়ে ৮০১ থেকে ১০০০তম অবস্থানে আছে দেশসেরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বুয়েট। চলতি বছর জুনে প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‍্যাঙ্কিংয়ে এই দুই বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ৮০১ থেকে ১০০০তম। এর অর্থ হচ্ছে তারা র‍্যাঙ্কিংয়ের সেরা ১০০০-এর শেষ ২০০-তে অবস্থান করছে। এ র‍্যাঙ্কিংয়ে ১০০১ থেকে ১২০০তম স্থান অর্জন করেছে বেসরকারি ব্র্যাক ও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়।

২০০৪ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা সাময়িকী ‘টাইমস হায়ার এডুকেশন’–এর সঙ্গে যৌথভাবে সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাঙ্কিং প্রকাশ করলেও ২০১০ সালে আলাদা হয়ে যায় কিউএস। এর পর থেকে এককভাবেই র‍্যাঙ্কিং প্রকাশ করে আসছে তারা। কিউএসের প্রকাশিত সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকাকে বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য র‍্যাঙ্কিংগুলোর একটি মনে করা হয়। কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‍্যাঙ্কিংয়ে এখন আটটি সূচকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক মান নিরূপণ করা হয়। প্রতিটি সূচকে ১০০ করে স্কোর থাকে। সব সূচকের যোগফলের গড়ের ভিত্তিতে সামগ্রিক স্কোর নির্ধারিত হয়।

কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‍্যাঙ্কিংস: সাসটেইনেবিলিটি ২০২৩ তালিকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ৫৫১-৬০০ ও বুয়েটের অবস্থান ৬০১ থেকে ওপরে।

কিউএস র‍্যাঙ্কিংয়ের সূচকগুলো হলো একাডেমিক খ্যাতি (একাডেমিক রেপুটেশন), চাকরির বাজারে সুনাম (অ্যামপ্লয়ার রেপুটেশন), শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত (ফ্যাকাল্টি-স্টুডেন্ট রেশিও), শিক্ষকপ্রতি গবেষণা-উদ্ধৃতি (সাইটেশনস পার ফ্যাকাল্টি), আন্তর্জাতিক শিক্ষক অনুপাত (ইন্টারন্যাশনাল ফ্যাকাল্টি রেশিও), আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী অনুপাত (ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্ট রেশিও), আন্তর্জাতিক গবেষণা নেটওয়ার্ক (ইন্টারন্যাশনাল রিসার্চ নেটওয়ার্ক) ও কর্মসংস্থান (অ্যামপ্লয়মেন্ট আউটকামস)।

২০২৩ সালের জন্য গত জুনে প্রকাশিত র‍্যাঙ্কিংয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমিক খ্যাতিতে ১৯ দশমিক ৪, চাকরির বাজারে সুনামে ৩৪ দশমিক ২, শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাতে ১২ দশমিক ৯, শিক্ষকপ্রতি গবেষণা-উদ্ধৃতিতে ২ দশমিক ৪, আন্তর্জাতিক শিক্ষক অনুপাতে ১ দশমিক ৮, আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী অনুপাতে ১ দশমিক ১, আন্তর্জাতিক গবেষণা নেটওয়ার্কে ২৭ দশমিক ৬ আর কর্মসংস্থানে ৫৬ দশমিক ৩ স্কোর পেয়েছিল।

অন্যদিকে বুয়েট একাডেমিক খ্যাতিতে ১৪ দশমিক ১, চাকরির বাজারে সুনামে ২৫ দশমিক ২, শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাতে ২১ দশমিক ৭, শিক্ষকপ্রতি গবেষণা-উদ্ধৃতিতে ৯ দশমিক ৫, আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী অনুপাতে ১ দশমিক ১, আন্তর্জাতিক গবেষণা নেটওয়ার্কে ১১ দশমিক ৭ আর কর্মসংস্থানে ৪৬ দশমিক ৮ স্কোর পেয়েছিল। তবে আন্তর্জাতিক শিক্ষক অনুপাতে বুয়েটের কোনো স্কোর উল্লেখ করা হয়নি।