default-image

বিশ্বজনীন অবস্থান-নির্ণায়ক ব্যবস্থা, যাকে মূল ইংরেজিতে গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম ও সংক্ষেপে জিপিএস নামে ডাকা হয়। অবস্থান শনাক্তকরণসহ স্মার্টফোনে নানা কাজে জিপিএস প্রযুক্তি ব্যবহৃত হচ্ছে। গবেষকেরা বলছেন, তারা স্মার্টফোনে জিপিএসকে আরও উন্নত করতে সক্ষম হয়েছে। এতে জিপিএস আরও নিখুঁতভাবে কাজ করবে। নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার গবেষকেরা বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করেছেন। আইএএনএসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

নিউজিল্যান্ডের অটাগো বিশ্ববিদ্যালয় ও অস্ট্রেলিয়ার কার্টিন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকেরা চারটি পৃথক গ্লোবাল নেভিগেশন স্যাটেলাইট সিস্টেমস থেকে নেওয়া তথ্যের সমন্বয়ে একটি সিস্টেম তৈরি করেছেন, যাতে স্মার্টফোন থেকে সেন্টিমিটার স্তরে কোনো কিছুর অবস্থান নির্ণয় করা হয়।

জার্নাল অব জিওডেশি সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে গবেষণাসংক্রান্ত নিবন্ধ।

অটাগো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক রবার্ট অডোলিনস্কি বলেন, সাশ্রয়ী স্মার্টফোন ব্যবহার করে গ্লোবাল নেভিগেশন স্যাটেলাইট সিস্টেমসের সংকেত পেতে গাণিতিক পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছে। নতুন এ সক্ষমতার ফলে যে অ্যাপ্লিকেশনগুলোয় সেন্টিমিটার পর্যায়ে অবস্থান শনাক্ত করা দরকার হবে, তা করা যাবে। অর্থাৎ, কোনো বস্তুর অবস্থান একেবারে নিখুঁতভাবে নির্ণয় করা যাবে।

গবেষক অডোলিনস্কি বলেন, নতুন পদ্ধতিতে দুটি তরঙ্গের একটি ব্যবহার করা হয়, তবে আরও বেশি স্যাটেলাইটের তথ্য সংগ্রহ করে। একে ‘মাল্টি-কনস্টেলশন’ জিএনএসএস সলিউশন বলে। অতিরিক্ত তথ্য ও গাণিতিক পদ্ধতি ব্যবহার করে বাড়তি খরচ ছাড়াই নিখুঁতভাবে অবস্থান নির্ণয় করা যায়।

গবেষকেরা বলছেন, এ পদ্ধতি প্রয়োগে নিখুঁতভাবে গাড়ির অবস্থান নির্ণয়, জরিপ, নজরদারির মতো কাজগুলো করা যাবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0