বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

দ্য ভার্জের প্রতিবেদনে বলা হয়, ফেসবুক পেজটিতে গোটা দশেক পোস্ট ছিল। প্রথম পোস্ট করা ২১ অক্টোবর। সেখানে ইলন মাস্কের একটি ছবি পোস্ট করা হয়। সঙ্গে ছিল তাঁর সাম্প্রতিক কিছু টুইট।

ফেসবুক পেজটি শুরুতে ‘ইলন মাস্ক’ হিসেবে খোলাও হয়নি। পেজ ট্রান্সপারেন্সি ট্যাবে কোনো পেজের গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তনের ইতিহাস, কে সেটির ব্যবস্থাপনায় আছে এবং বিজ্ঞাপন দেখায় কি না, তা উল্লেখ করা থাকে। এই পেজের ট্রান্সপারেন্সি ট্যাবে লেখা ছিল, সেটি ২০১৯ সালের ২৮ জুলাই খোলা হয় ‘কিজিতো গ্যাভিন’ হিসেবে। উগান্ডার ফুটবলার গ্যাভিন কিজিতোর নামের সঙ্গে যার মিল আছে।

২০২১ সালে পেজটির নাম মোট ছয়বার পরিবর্তন করা হয়েছে। সবশেষ ১৭ অক্টোবর রাখা হয় ‘ইলন মাস্ক’। পেজটি ব্যবস্থাপনার সঙ্গে যিনি যুক্ত, তাঁর বাড়ি মিসরে। অথচ মাস্ক থাকেন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে।

default-image

আরেকটি বিষয় হলো, পেজটির ওয়েব ঠিকানার শেষাংশ অসম্পূর্ণ: www.facebook.com/ElonMuskoffici—যা খুব একটা ‘অফিশিয়াল’ নয়।

পেজটি কবে ভেরিফায়েড হয়েছে, তা বলা মুশকিল। ফেসবুকের ভেরিফিকেশনে নীতিমালায় বলা হয়েছে, কোনো পেজ বা প্রোফাইলের ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েই ভেরিফায়েড করা হয়। সেটা জনপ্রিয় ব্যক্তি কিংবা ব্র্যান্ড হতে পারে। ফেসবুকে ভেরিফায়েড হওয়ার জন্য একটি ফরম পূরণ করতে হয়, যেখানে আবেদনকারীকে ড্রাইভিং লাইসেন্স, পাসপোর্ট, জাতীয় পরিচয়পত্র, কর নথি, সাম্প্রতিক ইউটিলিটি বিল কিংবা আর্টিকেল অব ইনকরপোরেশনের কপি জমা দিতে বলা হয়।

বড় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম প্ল্যাটফর্মগুলোর জন্য ভেরিফিকেশন বেশ চ্যালেঞ্জিং একটি ব্যাপার। টুইটার বেশ ঝামেলায় পড়ে ২০১৭ সালে ভেরিফিকেশন প্রক্রিয়া স্থগিত রাখতে বাধ্য হয়, চলতি বছর পুনরায় তা চালু করে। সেখানেও বিপত্তি ঘটে। ভুলে কিছু ভুয়া অ্যাকাউন্ট ভেরিফায়েড করা হয়েছিল বলে গত জুলাইয়ে স্বীকার করে টুইটার।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন