default-image

২০২০ সালের শেষ প্রান্তিকে তার এক বছর আগের তুলনায় স্মার্টওয়াচের বিক্রি বেড়েছে দেড় শতাংশ। গবেষণা প্রতিষ্ঠান কাউন্টারপয়েন্ট রিসার্চের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মেয়াদে বিক্রিতে শীর্ষ অবস্থান ধরে রেখেছে অ্যাপল। ওই প্রান্তিকে বিক্রি হওয়া স্মার্টওয়াচের ৪০ শতাংশই ছিল অ্যাপলের। ২০১৯ সালের সঙ্গে তুলনা করলে পরিমাণটা বেড়েছে ৬ শতাংশ।

গত বছর বিশ্বব্যাপী অ্যাপলের ওয়াচ সিরিজ ৬ এবং ওয়াচ এসই বিক্রি হয়েছে ১ কোটি ২৯ লাখ।

দ্বিতীয় অবস্থানে স্যামসাং। মূলত ‘গ্যালাক্সি ওয়াচ ৩’ ঘড়িটির সুবাদে মোট বিক্রির ১০ শতাংশ দক্ষিণ কোরীয় প্রতিষ্ঠানটির দখলে।

স্যামসাংয়ের পর কাছাকাছি অবস্থানে আছে হুয়াওয়ে (৮ শতাংশ), ফিটবিট (৭ শতাংশ) এবং বিবিকে গ্রুপ (৬ শতাংশ)। এই পাঁচটি গত বছরের শেষ প্রান্তিকে বিক্রিতে সেরা স্মার্টওয়াচ ব্র্যান্ড।

হুয়াওয়ে ছাড়া অন্যান্য চীনা ব্র্যান্ড যেমন অনর, অ্যামাজফিট এবং শাওমি একই মেয়াদে ভালো করেছে।

কাউন্টারপয়েন্ট রিসার্চের জ্যেষ্ঠ বিশ্লেষক সুজং লিম বলেন, ২০২০ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে স্মার্টঘড়ির গড় বিক্রয়মূল্য বাড়তির দিকে। আগামী দুই বা তিন বছর এই মূল্য বাড়তে থাকবে বলেও উল্লেখ করেছেন তিনি। সঙ্গে যোগ করেছেন, বাজারে আধিপত্য বিস্তার করবে অ্যাপল, স্যামসাং ও হুয়াওয়ের ফ্ল্যাগশিপ মডেলগুলো। এরপর অপো কিংবা রিয়েলমির মতো ব্র্যান্ডগুলো বাজারে কম দামের স্মার্টওয়াচ ছাড়লে সার্বিকভাবে দাম কিছুটা কমতে পারে, তবে তখন বাড়বে প্রতিযোগিতা।

বিজ্ঞাপন
প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন