বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাজারে আধিপত্যের সুযোগ নিয়ে প্রতিযোগিতাপূর্ণ পরিবেশ নষ্টের দায়ে গুগলকে ৫০০ কোটি ডলার জরিমানা করে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। গুগল সে জরিমানার বিরুদ্ধে আদালতে আপিল করেছে। বিং সার্চে সবচেয়ে বেশি খোঁজা শব্দ গুগল, এমন দাবি আপিলের নথিতে করা হয়।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের অভিযোগ ছিল, স্মার্টফোনের বাজারে অ্যান্ড্রয়েডের জনপ্রিয়তার সুযোগ নিয়ে ডিভাইসগুলোয় পূর্বনির্ধারিত (ডিফল্ট) সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে গুগল ঠিক করে দেওয়া হচ্ছে। সে অভিযোগ ঠিক নয় বলে উল্লেখ করেছে গুগল। বলেছে, তাদের সেবা এমনিতেই সবচেয়ে জনপ্রিয়।

আপিলে গুগল লিখেছে, ‘আমরা প্রমাণসহ দেখিয়েছি, বিংয়ে সবচেয়ে বেশি খোঁজা শব্দ হলো “গুগল’। মানুষ স্বেচ্ছায় গুগল ব্যবহার করে, জোরপূর্বক নয়।’ গুগল জানায়, জরিপে দেখা যায়, ৯৫ শতাংশ ব্যবহারকারী প্রতিদ্বন্দ্বীদের সেবাগুলোর তুলনায় গুগল বেশি পছন্দ করে।

২০১৮ সালে আরোপিত সে জরিমানার বিপক্ষে গুগলের আবেদনের গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলোর একটি এই ‘ব্যবহারকারীরা স্বেচ্ছায় গুগল ব্যবহার করে’। জরিমানা ধার্যের পর গুগলের প্রধান সুন্দর পিচাই ব্লগ পোস্টে লিখেছিলেন, অ্যান্ড্রয়েড সবাইকে অনেক অপশন দিয়েছে বৈ কম নয়।

তবে তৎকালীন ইউরোপীয় কমপিটিশন কমিশনার মাখাইথে ভেস্তেয়ার বলেছিলেন, অ্যান্ড্রয়েডচালিত স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে আগে থেকে গুগল ও ক্রোম অ্যাপ ইনস্টল করতে বাধ্য করেছে প্রতিষ্ঠানটি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে গুগলকে একমাত্র সেবা হিসেবে নির্ধারণ করতে অর্থও দিয়েছে। এতে কেবল ১ শতাংশ মানুষ সার্চ ইঞ্জিনের জন্য অন্য অ্যাপ ব্যবহার করেছে।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন