বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, শাওমির ফোনগুলো ব্যবহারকারীর তথ্য এনক্রিপ্ট করে সিঙ্গাপুরের একটি ডেটা সার্ভারে পাঠায়। হুয়াওয়ের পি৪০ ফাইভজি মডেলের স্মার্টফোনেও নিরাপত্তাত্রুটি মিলেছে। তবে আরেক চীনা প্রতিষ্ঠান ওয়ানপ্লাসের স্মার্টফোনে কোনো ত্রুটি পায়নি সাইবার নিরাপত্তা সংস্থাটি।

প্রতিবেদনটি তুলে ধরার সময় লিথুয়ানিয়ার প্রতিরক্ষা উপমন্ত্রী মারগিরিস আবুকেভিসিয়াস সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের পরামর্শ হলো নতুন চীনা স্মার্টফোন না কেনা। আর যেগুলো আগেই কেনা হয়েছে, সেগুলো থেকে যত দ্রুত সম্ভব নিস্তার পাওয়া।’

লিথুয়ানিয়ায় তাইওয়ানের দূতাবাসের নাম ‘তাইওয়ানিজ রিপ্রেজেন্টেটিভ অফিস’ রাখার ঘোষণা দিলে চটে যায় চীন। গত মাসে চীন জানায়, লিথুয়ানিয়া থেকে তাদের রাষ্ট্রদূতকে ফিরিয়ে আনা হবে। একই সঙ্গে বেইজিং থেকে লিথুয়ানিয়ার রাষ্ট্রদূতকে ফিরিয়ে নিতে বলা হয়।

তাইওয়ানকে নিজেদের অঞ্চল হিসেবে দাবি করে চীন। ঝামেলা এড়ানোর জন্য ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রে তাইওয়ানের দূতাবাসের উল্লেখ করতে চাইলে ‘তাইওয়ান’ না বলে ‘তাইপেই’ উল্লেখ করা হয়।

ইন্টারনেট ব্রাউজারসহ শাওমির সিস্টেম অ্যাপগুলো বর্তমানে ৪৪৯টি চীনা শব্দ সেন্সর করতে পারে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। এতে বলা হয়, ‘এটা কেবল লিথুয়ানিয়ার জন্য নয়, বরং শাওমির যন্ত্রাংশ ব্যবহার করে এমন সব দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।’

শাওমির অস্বীকার

লিথুয়ানিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন ঠিক নয় বলে দাবি করেছে শাওমি। প্রতিবেদনটি প্রকাশের পর গতকাল বুধবার প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়, তাদের স্মার্টফোন ব্যবহারকারীর আদান–প্রদান করা তথ্য সেন্সর করে না।

রয়টার্সকে পাঠানো এক বিবৃতিতে শাওমির মুখপাত্র বলেছেন, শাওমি কখনো ওয়েব ব্রাউজিং, কল কিংবা অন্য কোনো যোগাযোগের সফটওয়্যার ব্যবহারের মতো গ্রাহকদের ব্যক্তিগত কোনো কাজে প্রতিবন্ধকতা তৈরি বা তা করতে না দেওয়ার মতো কিছু করেনি। ভবিষ্যতেও এ রকম কিছু করবে না।

সব ব্যবহারকারীর আইনি অধিকারের প্রতি শাওমির পূর্ণ শ্রদ্ধা রয়েছে এবং তার সুরক্ষা দেওয়া হয়।

প্রযুক্তি থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন