বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ আবু তৈয়ব বলেন, পেটের পীড়া নিয়ে প্রতিদিন দুই থেকে তিনজন শিক্ষার্থী চিকিৎসা নিতে আসেন। মাসে এই সংখ্যা অন্তত ৭০ জন। তবে তা পানির সমস্যা থেকে পীড়া কি না, পরীক্ষা ছাড়া বলা যাবে না।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম মনিরুল হাসান বলেন, খাওয়ার পানির সংকট পূরণের জন্য প্রাধ্যক্ষদের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাঁরা বিষয়টি সমাধান করার চেষ্টা করবেন।

শেখ হাসিনা হল কার্যালয়ে তালা

হলের অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়ে সাত দফা দাবিতে জননেত্রী শেখ হাসিনা হলের কার্যালয়ে তালা দেন ছাত্রীরা। গতকাল সকাল সাড়ে ১০টায় তালা দেওয়া হয়। দেড় ঘণ্টা পর দুপুর ১২টার দিকে কর্তৃপক্ষকে দুই দিনের সময় দিয়ে তালা খুলে দেন।

ছাত্রীদের উল্লেখযোগ্য দাবিগুলো হচ্ছে খাওয়ার পানির ব্যবস্থা করার পাশাপাশি নিয়মিত পানির ট্যাংক ও শৌচাগার পরিষ্কার করা, দুই কর্মদিবসের মধ্যে হলের বর্ধিত অংশ খুলে দেওয়া, খাবারের মান বাড়ানো, রাতে ডাইনিং চালু করা ইত্যাদি।

জননেত্রী শেখ হাসিনা হলের শিক্ষার্থী রওজাতুল জান্নাত বলেন, খাওয়ার পানির সংকট দীর্ঘদিনের। এ ছাড়া কলের পানিতেও আয়রন থাকে। অনেকের অ্যালার্জিজনিত বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিচ্ছে। কর্তৃপক্ষকে বিভিন্ন সময় লিখিত অভিযোগ দিলে তাঁরা ব্যবস্থা নেননি। এ জন্য তালা দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে বক্তব্য জানতে হলের প্রাধ্যক্ষ এ কে এম রেজাউল হকের মুঠোফোনে কল করা হলেও তিনি ধরেননি। এর আগে গত ১০ মার্চ আট দফা দাবিতে প্রাধ্যক্ষকে অবরুদ্ধ করে রাখেন প্রীতিলতা হলের ছাত্রীরাও। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, সেই আট দাবি এখনো পূরণ হয়নি।

ছাত্রদের হলেও সংকট

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের আবাসিক হল রয়েছে সাতটি। এর মধ্যে শাহজালাল, শাহ আমানত, আলাওল, এ এফ রহমান, সোহরাওয়ার্দী ও মাস্টারদা সূর্য সেন হলের ডাইনিং বাদে আর কোনো জায়গায় পানির ফিল্টার নেই। শহীদ আব্দুর রব হলে ডাইনিং ছাড়াও দুটি আলাদা জায়গায় রয়েছে। তবে অধিকাংশ সময় এগুলো নষ্ট থাকতে দেখা যায়। আর আলাওল হলের ফিল্টারটি নষ্ট এক মাস ধরে। এই সাত হলে ছাত্র আছে চার হাজারের বেশি।

হলগুলোতে সুপেয় পানির সমস্যা রয়েছে বলে স্বীকার করেছেন শাহজালাল হলের প্রাধ্যক্ষ মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন। তিনি বলেন, সব হলেই এই সমস্যা রয়েছে। শুধু ফিল্টার দিয়ে তা সমাধান করা সম্ভব নয়। গভীর নলকূপ স্থাপন করতে হবে।

বিশুদ্ধ পানির অভাবে শিক্ষার্থীরা পেটের পীড়া, চর্মরোগসহ বিভিন্ন সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারেন বলে মন্তব্য করেছেন জনস্বাস্থ্য অধিকার রক্ষা কমিটি, চট্টগ্রামের সদস্যসচিব চিকিৎসক সুশান্ত বড়ুয়া। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের জন্য বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করা বিশ্ববিদ্যালয়ের জরুরি দায়িত্ব। সুপেয় পানি না পেলে শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন রোগে ভুগতে পারেন।

শিক্ষা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন