default-image

কথায় আছে, ‘নগর পুড়লে দেবালয়ও রক্ষা পায় না’। ঠিক তেমনটাই যেন ঘটেছে করোনাভাইরাসের বেলায়। মানুষের স্বাস্থ্যের পাশাপাশি করোনায় আক্রান্ত হয়েছে বিনোদনজগতও। দেশ–বিদেশ সবখানেই করোনা প্রভাব ফেলেছে। পিছিয়ে যাচ্ছে সিনেমার মুক্তি, বাতিল হচ্ছে কনসার্ট, নাটকের মঞ্চায়ন ইত্যাদি। বিনোদনজগতে করোনার প্রকোপ নিয়ে এই আয়োজন।

পেছাল ‘০০৭’ আর ‘এমআই সিক্স’–এর অভিযান
ড্যানিয়েল ক্রেইগের ‘জেমস বন্ড’ সিরিজের নতুন কিস্তি নো টাইম টু ডাই বেশ জোরেশোরে বক্স অফিস কাঁপানোর প্রস্তুতি নিচ্ছিল। করোনার কারণে স্থগিত করা হয় এই চলচ্চিত্রের উদ্বোধনী প্রদর্শনী। শুধু চীনে নয়, গোটা চলচ্চিত্রের মুক্তির সময়টাই পিছিয়ে নেওয়া হয়েছে ৭ মাস। চলতি মাস থেকে এখন পিছিয়ে আগামী নভেম্বরে মুক্তি পাবে নো টাইম টু ডাই।অন্যদিকে ‘মিশন ইম্পসিবল’ সিরিজের নতুন ছবির শুটিংও স্থগিত হয়ে গেছে করোনার শঙ্কায়। আর শুটিং পেছানো মানেই তো ছবির মুক্তিও পিছিয়ে যাওয়া। তাই ০০৭–এর মতো ‘মিশন ইম্পসিবল’–এর এমআই সিক্স এজেন্ট ইথানকেও এখনো লম্বা সময় পর দেখতে হবে।

default-image

বাদবাকি চলচ্চিত্রগুলো

শুধু যে জেমস বন্ড করোনায় আক্রান্ত হয়েছে, তা–ই নয়, মে মাসে মুক্তি পেতে যাওয়া মার্ভেলের ব্ল্যাক উইডো এবং ডিজনির ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস ৯ ছবি দুটির মুক্তিও আটকে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছে অনেকে। যদিও আনুষ্ঠানিকভাবে এখন পর্যন্ত চলচ্চিত্র মুক্তির সময় পেছাননি প্রযোজকেরা। তবে করোনার আতঙ্ক আরও ছড়িয়ে পড়লে সিদ্ধান্ত বদলাতে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

সেই সঙ্গে জুন মাসে স্কুবি ডুর চলচ্চিত্র স্কুব! এবং ওয়ান্ডার ওম্যান ১৯৮৪ ছবির নামও আছে এই তালিকায়। চীনে অবশ্য ইতিমধ্যেই কড়া ব্যবস্থা নেওয়া শুরু করেছে প্রশাসন। তা ছাড়া জাপান, ইতালি, দক্ষিণ কোরিয়াসহ আরও অনেক দেশেই প্রায় ৭০ হাজার সিনেমা হল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

বিশ্বে চলচ্চিত্রের অন্যতম বড় বাজার হলো চীন। চীনে মুক্তি না পাওয়ায় অনেক চলচ্চিত্রই ইতিমধ্যে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এখনো চীনে মুক্তি পাওয়ার অপেক্ষায় আছে জোজো র‌্যাবিট, ১৯১৭ লিটল ওম্যান।করোনার কারণে সেই অপেক্ষা এখন আরও দীর্ঘায়িত হচ্ছে।

default-image

করোনায় কতটা ক্ষতিগ্রস্ত হলিউড

করোনার সংক্রমণের ভয়ে বিশ্বব্যাপী যে পরিমাণে প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ হয়েছে, তাতে প্রায় ২০০ কোটি ডলার হারানোর আশঙ্কা করছে হলিউড। আর সিনেমার মুক্তি বাতিল হওয়ার সঙ্গে যদি কনসার্ট বাতিলের লোকসানও যোগ করা হয়, তাহলে অর্থমূল্যে ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়াবে ৫০০ কোটি ডলার।

default-image

প্রভাব পড়ছে গানেও

করোনা ছড়িয়ে পড়ার কারণে ক্ষতির মুখে পড়েছে গানের জগৎও। অ্যালবাম প্রকাশিত হলেও বড় গানের দলগুলো নানা দেশ ঘুরে ঘুরে কনসার্ট ও অ্যালবামের প্রচার করতে পারছে না। একের পর এক অনুষ্ঠান বাতিল করে দেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে কিছুদিন আগে নিউজিল্যান্ডে যুক্তরাষ্ট্রের একটি গানের দল পারফর্ম করলে সেখান থেকেই একজনের মধ্যে করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। এরপর থেকেই ভাইরাসের ভয় বাতাসের বেগে ছড়াতে শুরু করে। বিটিএস, মারায়াহ্‌ ক্যারি, খালিদ, পিক্সিস, স্টোর্মজিসহ আরও অনেকেই ইতিমধ্যে নিজেদের আন্তর্জাতিক কনসার্ট বাতিল করে।

চলতি সপ্তাহেই পপসম্রাজ্ঞী ম্যাডোনা তাঁর ফ্রান্স সফরের দুটি কনসার্ট এই করোনার আতঙ্কেই বাতিল করেছেন। বলিউডকেও ভোগাচ্ছে এই করোনা। বলিউডের অন্যতম তারকাবহুল আয়োজন আইফা অ্যাওয়ার্ড আপাতত স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে করোনার কারণে।

default-image

উৎসব নিয়ে সংকটে আয়োজকেরা
বিশ্বের নানা দেশে যে হারে ছড়িয়ে পড়ছে করোনা, তাতে বড় বড় চলচ্চিত্র ও সংগীত উৎসবের ভবিষ্যৎ এখন অনিশ্চয়তায় পড়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বড় সংগীত উৎসব ‘সাউথ বাই সাউথওয়েস্ট মিউজিক ফেস্টিভ্যাল’ বাতিল করে দিয়েছেন আয়োজকেরা। এ ছাড়া অন্য উৎসব আয়োজকেরাও তাঁদের আয়োজন নিয়ে পড়েছেন বিপাকে। নেটফ্লিক্স, ইউনিভার্সেল স্টুডিওস ও সনির মতো প্রতিষ্ঠানগুলো তাঁদের কর্মীদের জানিয়ে দিয়েছে, এ বছর জনসমাগম হয় এমন আয়োজন থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে।

default-image

দেশের বিনোদন অঙ্গনেও করোনার প্রকোপ

বিশ্বের অন্য দেশগুলোর মতো বাংলাদেশের বিনোদন অঙ্গনও করোনার কারণে কিছুটা সংকটে পড়েছে। সবাই সাবধানী। যেমন আগামীকাল শুক্রবার মুক্তির কথা ছিল মাসুদ হাসান উজ্জ্বল পরিচালিত ঊনপঞ্চাশ বাতাস ছবিটির। কিন্তু করোনার কারণে আপাতত এর মুক্তি পিছিয়েছে। অন্যদিকে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো যুক্তরাষ্ট্রের গ্লোবাল মিডিয়া মেকার্স প্রোগ্রামের প্রতিনিধিদের বাংলাদেশে আসার কথা ছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে প্রতিনিধিদের সফরটি বাতিল হয়। জানা গেছে, সফর বাতিলের কয়েকটি কারণের মধ্যে করোনার শঙ্কাও একটি ছিল। এছাড়া স্থগিত করা হয়েছে অপূর্ব ও নুসরাত ফারিয়া অভিনীত ও শিহাব শাহীন পরিচালিত যদি... কিন্তু... তবুও ছবির শুটিং।

সাদিয়া ইসলাম, সূত্র: বিবিসি, সিএনএন

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0