বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শুক্রবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, ব্রিটিশ কাউন্সিল ও ঢাকা থিয়েটার যৌথ উদ্যোগে প্রায় এক দশক ধরে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মূলধারার থিয়েটারের সঙ্গে সম্পৃক্ত করতে কাজ করে যাচ্ছে। এর ধারাবাহিকতায় ২০১৩ সালে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের নিয়ে প্রথমবারের মতো নাট্যকর্মশালা শুরু করে তারা। এরপর ২০১৬ সালে ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশ এবং লন্ডনের গ্রেআই থিয়েটার কোম্পানির যৌথ উদ্যোগে প্রতিবন্ধী শিল্পীদের দিয়ে উইলিয়াম শেক্সপিয়রের গল্প অবলম্বনে ‘আ ডিফারেন্ট রোমিও অ্যান্ড জুলিয়েট’ নাটকটি মঞ্চস্থ হয়।

এই উদ্যোগের অংশ হিসেবে ২০১৯ সালে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য ‘ডেয়ার’ (ডিজ্যাবিলিটি আর্টস: রিডিফাইনিং এমপাওয়ারমেন্ট) প্রজেক্ট শুরু হয়। তিন বছরের এই প্রজেক্টের মূল উদ্দেশ্য ছিল, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ও থিয়েটার কর্মীদের এক মঞ্চে এনে কাজ করা। এর মাধ্যমে সমাজের কাছে বার্তা পৌছে দেওয়া যে, ‘প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠী কোনোভাবেই আমাদের থেকে পিছিয়ে নেই’।

কার্যক্রমের ধারবাহিকতায় এ বছর জাপানে অনুষ্ঠিত প্যারালিম্পিকে যুক্তরাজ্য, জাপান ও বাংলাদেশের প্রতিবন্ধী নাট্যকর্মীদের যৌথ প্রযোজনায় উইলিয়াম শেক্সপিয়রের ‘দ্য টেম্পেস্ট’ নাটকটি মঞ্চস্থ হয়।

২০২৩ সালে ব্রিটিশ কাউন্সিলের সহযোগিতায় আটটি বিভাগের আটটি নাট্যদলের সঙ্গে দক্ষিণ এশিয়ার প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের নাট্য প্রযোজনা নিয়ে ঢাকায় আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব, সেমিনার ও সিম্পোজিয়ামের আয়োজন করা হবে বলে জানিয়েছে ঢাকা থিয়েটার।

বিনোদন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন