বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

গিয়াস উদ্দিন সেলিমের কাছে প্রসঙ্গটি তুলতেই বললেন, ‘আমাকেও তিন দিন আগে দুজন জানিয়েছে, বাবা–মা হচ্ছে তারা। মিষ্টিও খাইয়েছে।’ গিয়াস উদ্দিন সেলিম সরাসরি স্বীকার করলেও শুরুতে বিষয়টি এড়িয়ে যেতে চাইলেন চয়নিকা চৌধুরী। বললেন, ‘পরী যদি বলে থাকে ঠিক আছে। কিন্তু আমি এসব নিয়ে কোনো কিছু বলতে পারব না।’ প্রতিবেদককে বললেন, ‘আপনি যেমনটা শুনেছেন, আমিও তেমনটাই শুনেছি। জীবনটা যেহেতু পরীর, সে যা বলবে তাই।’ চলচ্চিত্রে পরীমনি ও রাজকে এক করেছিলেন গিয়াসউদ্দিন সেলিম। গুনিন চলচ্চিত্রের শুটিং করতে গিয়েই তাঁদের পরিচয়। এই চলচ্চিত্রের কাজ শুরুর পর থেকেই পরীমনি–রাজকে নিয়ে গুঞ্জন, তাঁরা প্রেম করছেন। কয়েক মাস ধরে কানাঘুষাটা বেশি চলছিল। তবে গত সোমবার দুপুরের আগপর্যন্ত কেউ কোনো কথা বলেননি। নিজেদের মতো করেই জীবন যাপন করে গেছেন।

default-image

সোমবার বিকেলে দুজনই জানালেন, তাঁরা মা–বাবা হতে যাচ্ছেন। কবে বিয়ে করেছেন, জানতে চাইলে পরীমনি বলেন, ‘গত বছরের ১৭ অক্টোবর আমরা বিয়ে করেছি। প্রেম হওয়ার ঠিক সাত দিনের মাথায় এমন সিদ্ধান্ত নিই। প্রথমে দুই পরিবারকেই আমরা দুজন জানিয়েছিলাম। এরপর পারিবারিকভাবে রাজের আফতাব নগরের বাসায় বিয়ে হয় আমাদের।’ পরীমনি বললেন, ‘তাঁর সঙ্গে মিশতে গিয়ে দেখলাম, আমরা দুজনই পাগল। দুজনই ভাবলাম, আমাদের সারা জীবন একসঙ্গে থাকা উচিত। তাই কোনো কিছু না ভেবেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নিই আমরা।’ পরীমনি জানান, গুনিন-এর শুটিং করতে গিয়ে এক অন্য রকম রাজকে আবিষ্কার করেন তিনি। এরপর তাঁদের প্রেম গড়ায় পরিণয়ে। তিন দিন আগে পরিচালককে মিষ্টি খাইয়ে নিজেদের বিয়ের খবর জানিয়েছিলেন পরীমনি। বিয়ের ঘটনাটিও নিশ্চিত করেছেন গিয়াস উদ্দিন সেলিম।

default-image

শরিফুল রাজ বলেন, ‘খবরটা জেনে কী পরিমাণ খুশি হয়েছি, বলে বোঝাতে পারব না। আই অ্যাম প্রাউড অব হার।’ জীবনসঙ্গী হিসেবে পরীমনি কেমন, জানতে চাইলে বলেন, ‘সে কখনই আমাকে ছেড়ে যাবে না, আমিও না। ভাবছি, দুজনের কবরটাও একসঙ্গে হবে।’ পরীমনি বলেন, ‘আমাদের বিয়ের চার মাস হতে চলেছে। সপ্তাহ তিনেক আগে জানতে পারি যে মা হতে যাচ্ছি। প্রথম মাস চলছে। মা হওয়ার খবর শোনার পর যেদিন হাসপাতাল থেকে বের হয়েছি, মনে হচ্ছিল, আমি যেন উড়ছিলাম। ভাবছিলাম, আল্লাহরে, দুনিয়াদারি কেমন যেন হয়ে গেল। মনে হয়েছে, বিশাল পাখা হয়ে গেছে আমার। আমি পৃথিবীর সবচেয়ে পাওয়ারফুল উইমেন। অনেক শক্তি আমার।’ পরীমনি জানান, চিকিৎসক তাঁকে একটু সাবধানে চলাফেরা করতে বলেছেন। আপাতত শুটিং বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘আগামী দেড় বছর একদম ছুটি। বাচ্চাকে সুস্থভাবে পৃথিবীতে আনতে চাই। প্রপারলি একটা সুস্থ বাচ্চা জন্ম দিতে চাই।’ আইসক্রিম চলচ্চিত্র দিয়ে ঢালিউডে আসা শরিফুল রাজকে সর্বশেষ ‘নেটওয়ার্কের বাইরে’ ছবিতে দেখা যায়। অন্যদিকে ‘ভালোবাসা সীমাহীন’ ছবির মধ্য দিয়ে ঢালিউডে অভিষেক পরীমনির মুক্তি পাওয়া শেষ ছবি স্ফুলিঙ্গ।

বিনোদন থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন