করণের এই ছবির বিরুদ্ধে রাঁচির লেখক বিশাল এ সিং কাহিনি চুরির অভিযোগ এনেছেন। সেখানকার ব্যবসায়িক আদালতে এই মামলার শুনানি হয়েছে। আদালত এই মামলার শুনানিতে ‘যুগ যুগ জিও’ ছবির নির্মাতাদের নির্দেশ দিয়েছেন যে ছবিটি, মুক্তির আগে আদালতে এক বিশেষ প্রদর্শন রাখতে হবে। তার মানে, আদালত প্রথম এই ছবি দেখবেন, তারপর তাঁর রায় শোনাবেন। ছবিটি না দেখা পর্যন্ত আদালত চূড়ান্ত রায় শোনাবেন না।

default-image

লেখক বিশাল সিংয়ের অভিযোগ যে ধর্মা প্রোডাকশনকে তিনি ‘পুন্নি রানী’ ছবির পাণ্ডুলিপি মেইল করেছিলেন। তবে এই মেইলের কোনো উত্তর বিশাল ধর্মা প্রোডাকশনের পক্ষ থেকে পাননি।

default-image

এই লেখক অভিযোগ করেছেন যে তাঁরই চিত্রনাট্য ব্যবহার করে ধর্মা প্রোডাকশন ‘যুগ যুগ জিও’ ছবিটি নির্মাণ করেছেন। বিশাল সিং ছবির নির্মাতাদের কাছে দেড় কোটি রুপি ক্ষতিপূরণ দাবি করেছেন। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী রাঁচি আদালতকক্ষে ‘যুগ যুগ জিও’ ছবির এক বিশেষ প্রদর্শন রাখতে হবে। এই প্রদর্শনের পর বিচারক এমসি ঝাঁ বাদী এবং বিবাদী পক্ষের কথা শুনবেন, আর তারপর তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন যে এই মামলা প্রকৃতই কপিরাইট লঙ্ঘনের কি না। তবে এখনো ধর্মা প্রোডাকশনের পক্ষ থেকে কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করা হয়নি।

default-image

পারিবারিক ড্রামাভিত্তিক ছবি ‘যুগ যুগ জিও’ ঘিরে আগেও বিতর্ক দানা বেঁধেছিল। এর আগে পাকিস্তানের এক গায়ক নির্মাতাদের বিরুদ্ধে একটা গান চুরির অভিযোগ এনেছিলেন। এই ছবির গান ‘নাচ পঞ্জাবন’ ঘিরে বিতর্ক শুরু হয়েছিল। পাকিস্তানি গায়কের অভিযোগ যে তাঁর গান তাঁর অনুমতি ছাড়াই ‘যুগ যুগ জিও’ ছবিতে ব্যবহার করা হয়েছিল। পরে ধর্মা প্রোডাকশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল যে কোনো রকম গান চুরি করা হয়নি। দিল্লি, জয়পুর, গুজরাট, পুনেসহ দেশের আরও নানা প্রান্ত ঘুরে ‘যুগ যুগ জিও’ ছবির জোরদার প্রচারণা করছেন বরুণ, কিয়ারা, নীতু, অনিলরা।

বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন