default-image

মাইক টাইসনের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে বিজয় বলেন, ‘আমাদের এই ধরিত্রীতে চারজন সবচেয়ে বড় তারকা। আর এই চারজন হলেন মাইকেল জ্যাকসন, জ্যাকি চ্যান, ব্রুস লি, মাইক টাইসন। পৃথিবীর সব প্রান্তের মানুষ তাঁদের চেনেন। মাইকেল জ্যাকসন আর ব্রুস লি আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। আছেন শুধু জ্যাকি চ্যান, মাইক টাইসন। তাঁদের মধ্যে আমি মাইক টাইসনের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। আমি তাঁর সঙ্গে আড্ডা মেরেছি। একসঙ্গে বসে খেয়েছি। এমনকি টাইসনের ঘুষিও খেয়েছি। টাইসন আমার মুখে ঘুষি মেরেছিলেন, আর আমার মাথা ঝনঝনিয়ে উঠেছিল। তবে আমি কিন্তু দাঁড়িয়ে ছিলাম। ভাবুন, টাইসনের ঘুষি খেয়েও আমি দাঁড়িয়ে ছিলাম। এখন আমি যেকোনো চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত। এ ছাড়া তাঁর সঙ্গে আরও অনেক স্মৃতি আছে, যা আমি বলতে পারব না। আমার কাছে সারা জীবন তা থেকে যাবে।’

default-image

এই সাংবাদ সম্মেলনে বিজয়ের ‘জেজিএম’ ছাড়া উঠে আসে ‘পুষ্পা’, ‘আরআরআর’ ছবির সাফল্যের কথা। এই দক্ষিণি সুপারস্টার পরিচালক রাজামৌলিকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘রাজামৌলি স্যার প্যান ইন্ডিয়া ছবির জন্য এক নতুন দরজা খুলে দিয়েছেন। খুব শিগগির প্যান ইন্ডিয়া ছবিকে ভারতীয় সিনেমা বলা হবে। আমরা বিগ বাজেটের হলিউড ছবি দেখে থাকি। এবার আমরা যদি আমাদের আসল ক্ষমতা দেখাই, তাহলে ওরা আমাদের দরজায় কড়া নাড়বে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি আমার নিজস্ব এক চিন্তাভাবনা আপনাদের সঙ্গে শুধু ভাগ করে নিচ্ছি। আমাদের দেশের জনসংখ্যা বেশি। আর আমার মনে হয়, এটা আমাদের বড় শক্তি। হলিউডে বিগ বাজেটের ছবি বানানো হয়। ওদের স্টাররা বড়।

default-image

ওরা অনেক বেশি ব্যবসা করে। আর এসবের পেছনে আসল কারণ হলো, অনেক বেশিসংখ্যক মানুষ ইংরেজিতে কথা বলে আর এই ভাষা বোঝে। তাই ওদের জনপ্রিয়তা বেশি। সত্যি বলতে, আমি কখনোই মনে করি না যে হলিউড তারকারা আমাদের তারকাদের চেয়ে বেশি প্রতিভাবান। তাই ভারতীয় সিনেমাকে আরও বৃহত্তর পরিসরে মেলে ধরতে হলে আমাদের এক হতে হবে।’

বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন