বিজ্ঞাপন

সালমানের হিট ছবি ‘ম্যায়নে পেয়ার কিয়া’ ছবির সংগীত পরিচালক ছিলেন রামলক্ষ্মণ। ‘দিল দিওয়ানা’সহ এই ছবির প্রতিটি গান এখনো দর্শকদের মুখে মুখে। এই ছবি দিয়ে শুরু এই জুটির পথচলা। এরপর ‘হাম আপকে হ্যায় কৌন’, ‘পাত্থরকে ফুল’, ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’-এর মতো সালমান খানের জনপ্রিয় সব ছবিতে সংগীত পরিচালনা করতে দেখা গেছে রামলক্ষ্মণকে।

default-image

টুইটারে সালমান খান শোক প্রকাশ করে লিখেছেন, ‘সংগীত পরিচালক রামলক্ষ্মণ চলে গেলেন। আমার অনেক জনপ্রিয় ছবি, “ম্যায়নে পেয়ার কিয়া”, “পাত্থর কে ফুল”, “হাম সাথ সাথ হ্যায়”, “হাম আপকে হ্যায় কৌন”–এর সংগীত পরিচালনা করেছেন তিনি। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করি। পরিবারের প্রতি রইল আমার সমবেদনা।’

ভারতীয় সংগীত তারকা লতা মঙ্গেশকর শ্রদ্ধা জানিয়ে টুইটারে লিখেছেন, ‘মাত্র জানলাম অসম্ভব মেধাবী ও জনপ্রিয় সংগীত পরিচালক রামলক্ষ্মণজি মারা গেছেন। তাঁর চলে যাওয়ায় খুব খারাপ লাগছে। তিনি অসাধারণ একজন মানুষ ছিলেন। তাঁর পরিচালনায় আমার গাওয়া অনেক গান জনপ্রিয় হয়েছিল। তাঁর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই।’

default-image

লতা মঙ্গেশকরের গাওয়া ‘দিদি তেরা দেবর দিওয়ানা’ ‘কবুতর যা যা যা’সহ বেশ কিছু গান রামলক্ষ্মণের পরিচলনায় ছিল।

রামলক্ষ্মণ হিসেবে পরিচিত হলেও তাঁর আসল নাম বিজয় পাতিল। মূলত তাঁরা দুই বন্ধু বলিউডে রামলক্ষ্মণ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। কাজ করতেন এই নামে। তাঁর বন্ধু সুরেন্দ্র মারা যান ১৯৭৬ সালে। বিজয় পরিচিত হন লক্ষ্মণ নামে, সুরেন্দ্র ছিলেন রাম। বন্ধু মারা গেলেও তিনি নিজের নামে কাজ করেননি। রামলক্ষ্মণ নামেই কাজ করে গেছেন বন্ধুকে সম্মান জানাতে।

default-image

হিন্দি, মারাঠি, ভোজপুরি মিলিয়ে প্রায় ৭৫টি ছবির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন এই সংগীত পরিচালক। ১৯৪২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর নাগপুরে জন্ম হয় বিজয় পাতিলের। সংগীতের প্রথম পাঠ শিখেছিলেন বাবা ও চাচার কাছ থেকে। ছোট থেকে সংগীতের পরিবেশেই মানুষ হন তিনি। কিছুদিন আগে মহারাষ্ট্র সরকারের পক্ষ থেকে তাঁকে ‘লতা মঙ্গেশকর অ্যাওয়ার্ড ফর লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট’ সম্মানে ভূষিত করা হয়। তাঁর মৃত্যুতে হিন্দি মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে একটি যুগের অবসান হলো।

বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন