বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

দুজনের মধ্যে মতবিরোধ এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে বিবাহবিচ্ছেদের কথা পর্যন্ত ভাবছেন তাঁরা। এই জল্পনার মধ্যেই জানা গেল, এক ম্যারেজ কাউন্সিলরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন সামান্থা আর নাগা। ভক্তদের মনে আশা, তবে কি বিয়েটা রক্ষার শেষ চেষ্টা করছেন তাঁরা? তাই দূরত্ব দূর করার জন্য ম্যারেজ কাউন্সিলরের সঙ্গে দেখা করেছেন।

default-image

বিয়ের পর নিজের নামের শেষে স্বামীর পদবি আক্কিনেনি ব্যবহার করতেন সামান্থা। কিন্তু কিছুদিন আগে এই দক্ষিণি নায়িকা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁর নাম থেকে আক্কিনেনি বাদ দিয়ে ফেলেছেন। আর তার পর থেকে সামান্থা আর নাগার বৈবাহিক সম্পর্ককে ঘিরে নানান প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। কিছুদিন আগে এই দক্ষিণি রূপসী এ ব্যাপারে তাঁর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন।

তিনি বলেছেন, ‘এসব নিয়ে কথা বলতে চাচ্ছি না। আমি কোনো রকম বিতর্ক পছন্দ করি না। অন্যান্য মানুষের যেভাবে নিজের মতামত রাখার স্বাধীনতা আছে, আমারও তা–ই আছে।’

default-image

২০১০ সালে তেলেগু ছবি ইয়ে মায়া চেসাবেতে একসঙ্গে কাজ করেছিলেন সামান্থা আর নাগা চৈতন্য। ২০১৭ সালে হায়দরাবাদে তাঁদের বাগদান পর্ব হয়েছিল। আর ২০১৭ সালের ৬ অক্টোবর হিন্দুমতে ও পরদিন খ্রিষ্টীয় রীতিতে তাঁদের বিয়ে হয়েছিল। সামান্থার শ্বশুর দক্ষিণের অত্যন্ত জনপ্রিয় তারকা নাগার্জুন।

মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন