তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন থেকে জানা গেছে, তথ্যচিত্রের শুটিংয়ে অংশ নিতে ১৮ নভেম্বর নোরা ফতেহি ঢাকায় অবস্থান করতে পারবেন। প্রজ্ঞাপনের শর্তে আরও বলা হয়, শুটিংয়ের বাইরে নোরা ফতেহি আর কোনো কাজে বা অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারবেন না। এমনকি ওই তথ্যচিত্র নির্মাণের পর ছাড়পত্র নিতে হবে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ড থেকে। আয়োজকদের পক্ষ থেকে শর্ত ভঙ্গ করা হলে সরকার যে সিদ্ধান্ত নেবে, সেটিই চূড়ান্ত হবে।

নোরা ফতেহিকে বাংলাদেশে আনছে আয়োজক প্রতিষ্ঠান উইমেন লিডারশিপ করপোরেশন। প্রতিষ্ঠানের সভাপতি ইশরাত জাহানের সঙ্গে টিকিট বিক্রির ব্যাপারে কথা বলার জন্য একাধিকবার মুঠোফোনে সরাসরি ও হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ করা হয়। খুদেবার্তাও পাঠানো হয়। এমনকি টিকিট বিক্রির একটি পোস্টারের স্থিরচিত্রও পাঠানো হয়। কিন্তু রাত সোয়া নয়টা পর্যন্ত তাঁর সঙ্গে ফোনে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এদিকে বলিউড অভিনেত্রী নোরা ফতেহির কাছ থেকে আয়কর আদায় করতে চায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। এ জন্য নোরা ফতেহি সম্মানী বাবদ যত অর্থ পাবেন, তার ওপর ৩০ শতাংশ হারে কর দিতে হবে। এনবিআর থেকে বিষয়টি অবহিত করে জননিরাপত্তা বিভাগ, সুরক্ষা সেবা বিভাগ, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়, সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিবকে সোমবার চিঠি দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালককেও চিঠি দিয়েছে এনবিআর। তাঁদের কাছে নোরা ফতেহি সঠিকভাবে আয়কর দিয়েছেন কি না, তা নিশ্চিত করার অনুরোধ করেছেন এনবিআরের সদস্য শাহীন আক্তার। এ ছাড়া ওই অনুষ্ঠানে নোরার সঙ্গী অন্য কলাকুশলীদের কাছ থেকে আয়কর আদায়ের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এনবিআরের চিঠির ভাষ্য অনুযায়ী, বিদেশি অভিনেতা ও অভিনেত্রীদের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে বাংলাদেশে আসার অনুমতি বা ওয়ার্ক পারমিট নিতে হয়।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ থেকে এনবিআর জানতে পেরেছে, উইমেন লিডারশিপ করপোরেশনের ব্যবস্থাপনায় ১৮ নভেম্বর ঢাকার একটি সম্মেলনকেন্দ্রে ‘উইমেন এমপাওয়ারমেন্ট ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক একটি তথ্যচিত্রের শুটিংয়ে অংশগ্রহণের জন্য নোরা ফতেহিকে বাংলাদেশে আনার জন্য তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয় থেকে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে আরও বলা হয়, বিদেশি শিল্পীদের বাংলাদেশের যেকোনো ধরনের অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য চুক্তিপত্রে উল্লিখিত পারিশ্রমিক ছাড়াও অন্যান্য খরচ, যেমন বিমানভাড়া, অন্যান্য যাতায়াত খরচ, থাকা-খাওয়ার খরচসহ সব ধরনের খরচের পরিশোধিত অর্থের ওপর ৩০ শতাংশ হারে আয়কর আরোপিত হবে।

‘সাকি সাকি’, ‘দিলবার’ গানে নাচ পরিবেশন করে ঝড় তোলা নোরা এ মুহূর্তে বলিউডের সেরা নারী নৃত্যশিল্পীদের একজন। আইটেম গানের শিল্পী হিসেবে নোরা বলিউডের বেশ কিছু ছবিতে নজর কেড়েছেন। সেগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘কিক টু’, ‘শের’, ‘লোফার’, ‘সত্যমেব জয়তে’, ‘স্ত্রী’, ‘ভারত’, ‘বাটলা হাউস’। হিন্দির পাশাপাশি তেলেগু, মালয়ালম ও তামিল ছবিতেও নোরা ফতেহির সরব উপস্থিতি নজর কাড়ে। কেবল বড় পর্দায় নয়, ছোট পর্দা ও মিউজিক ভিডিওতেও সমান জনপ্রিয় তিনি। ‘বিগ বস-৯’, ‘ঝলক দিখলা যা’, ‘কমেডি নাইটস’, ‘এমটিভি ট্রল পুলিশ’সহ অন্যান্য রিয়েলিটি শোতেও তাঁর পারফরম্যান্স নজরকাড়া।

মরক্কীয় বংশোদ্ভূত নোরার জন্ম ও বেড়ে ওঠা কানাডায়। ছোটবেলায় তিনি শাহরুখ খান ও হৃতিক রোশনের ভক্ত ছিলেন। আরবিতে ডাব করা তাঁদের অভিনীত সিনেমা দেখে বড় হয়েছেন নোরা। সেই থেকে স্বপ্ন, বলিউডে কাজ করবেন। কিন্তু রক্ষণশীল অভিভাবকের বাড়িতে সেটি ছিল প্রায় অসম্ভব। বলিউডে নাম লেখানোর স্বপ্ন নিয়ে ভারতে পা রেখেছিলেন।