চিত্রসমালোচক ভরদ্বাজ রঙ্গনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জাহ্নবী স্বীকার করেন, ইনস্টাগ্রাম পোস্ট থেকে অর্থ উপার্জন করেন তিনি। জাহ্নবী বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবি পোস্ট করে তিনি যে অর্থ পান, তা দিয়ে ইকুয়েটেড মান্থলি ইনস্টলমেন্ট (ইএমআই) শোধ করেন।

ভরদ্বাজ বলেন, এই প্রথম কোনো অভিনেত্রী স্বীকার করলেন যে তাঁকেও ইএমআই দিতে হয়। জাহ্নবী হেসে বলেন, এটাই সত্যি।

কিছুদিন আগেই ৬৫ কোটি টাকা দিয়ে বিলাসবহুল বাড়ি কিনেছেন জাহ্নবী। তবে ইনস্টাগ্রামের আয় দিয়ে সেই বাড়ি কেনার মাসিক কিস্তি মেটান কি না, তা অবশ্য জানাননি অভিনেত্রী। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের পোস্ট থেকে টাকা পাওয়ার কথা স্বীকার করলেও, কত আয় করেন সেটাও বলেননি।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট প্রসঙ্গে আলোচনা আসে তাঁর সিনেমাগুলোর প্রসঙ্গে। ‘ধড়ক’, ‘গুঞ্জন সাক্সেনা—দ্য কারগিল গার্ল’, ‘গুডলাক জেরি’ থেকে ‘মিলি’ সব ছবিতেই ‘পাশের বাড়ির মেয়ে’ ধরনের চরিত্রে দেখা গেছে তাঁকে।

কিন্তু ইনস্টাগ্রাম মানেই জাহ্নবীর গ্ল্যামারাস উপস্থিতি। ইনস্টাগ্রামে তাঁর বিভিন্ন ছবি ও সিনেমার করা চরিত্রগুলোর পোশাক কি সাংঘর্ষিক?

জাহ্নবী মনে করেন, সেটা একেবারেই নয়। কারণ, ইনস্টাগ্রামে মানুষ দেখেন জাহ্নবী কাপুরকে আর সিনেমায় দেখেন চরিত্রকে। যখন যে চরিত্রে অভিনয় করেন, সে চরিত্রের মতোই পোশাক পরেন। কিন্তু ইনস্টাগ্রামে ছবি দেন নিজের মর্জিমতো পোশাকে।

৪ নভেম্বর মুক্তি পেয়েছে জাহ্নবী অভিনীত ‘মিলি’। মালয়ালম ছবি ‘হেলেন’-এর অফিশিয়াল হিন্দি রিমেকটি অবশ্য সেভাবে সমালোচকদের মন ভরাতে পারেনি।