‘আমি দুধের প্যাকেট নই, যেখানে মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ লেখা আছে’

রেজিনা ক্যাসান্দ্রা

দক্ষিণের দাপুটে নায়িকাদের একজন রেজিনা ক্যাসান্দ্রা। কয়েকটি হিন্দি ওয়েব সিরিজের জোরে বলিউডেও চেনা মুখ হয়ে উঠেছেন তিনি। এবার রেজিনা আসতে চলেছেন ক্রাইম থ্রিলার জানবাজ হিন্দুস্তান কে ওয়েব সিরিজে। সৃজিত মুখোপাধ্যায় পরিচালিত সিরিজটিতে রেজিনাকে নারী আইপিএস অফিসার ‘কাব্য আইয়ার’-এর চরিত্রে দেখা যাবে।

রেজিনা ক্যাসান্দ্রা

পুলিশের পোশাক গায়ে চাপানোর অনুভূতি ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘আইপিএসের ইউনিফর্ম গায়ে মনে হচ্ছিল স্বপ্নের দুনিয়ায় আছি। সে এক অদ্ভুত অনুভূতি। আমি এমন এক শক্তিশালী চরিত্রে অভিনয় করেছি, যা আগে কখনো করিনি। আমার বিশ্বাস, আমি আমার অভিনীত চরিত্রের সঙ্গে ন্যায়বিচার করতে পেরেছি।’

কিছুদিন আগেই ভারতের মেঘালয় থেকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবি পোস্ট করেছেন সৃজিত মুখার্জি। এবার খোলাসা হলো তাঁর মেঘালয় সফরের রহস্য—জানবাজ হিন্দুস্তান কের শুটিং হয়েছে রাজ্যটিতে। ভারতের আরও নানা নয়নাভিরাম লোকেশনে হয়েছে সিরিজটির শুটিং।

রেজিনা ক্যাসান্দ্রা

সিরিজটিতে নানা ধরনের লোকেশন কেন গুরুত্বপূর্ণ, সেটিও জানান রেজিনা, ‘তিন মাস ধরে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর ভারতের চারটি রাজ্যে সিরিজের শুটিং হয়েছে। সিরিজটিকে বাস্তব রূপ দেওয়ার জন্য যে ধরনের লোকেশন প্রয়োজন ছিল, তা আমরা এসব জায়গায় পেয়েছিলাম।’

তামিল ছবি কানদা নাল মুধাই-এ পার্শ্ব অভিনেত্রী হিসেবে চলচ্চিত্র দুনিয়ায় পা রেখেছিলেন ক্যাসান্দ্রা।

২ / ৯
রেজিনা ক্যাসান্দ্রা

তিনি বলেছেন, ‘১৪ বছর বয়সে ক্যারিয়ার শুরু করেছিলাম। আনুষ্ঠানিকভাবে হিসাব করলে ২০১২ সালে শুরু। তখন সবে কলেজ শেষ করেছি। আমার মানসিক অবস্থান তখন অন্য রকম ছিল। অভিনেত্রী হওয়ার কোনো পরিকল্পনা ছিল না। অনেকে পরামর্শ দিয়েছিল, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব যা খুশি করে নাও। কারণ, নায়িকাদের অভিনয়জীবন মাত্র পাঁচ বছরের। কিন্তু আমি মনে করি, আমি দুধের প্যাকেট নই, যেখানে মেয়াদোত্তীর্ণ তারিখ লেখা আছে।’

নিজের ছন্দে বাঁচতে ভালোবাসেন ক্যাসান্দ্রা। এমনকি ক্যারিয়ারের ক্ষেত্রে কারও নাক গলানো পছন্দ করেন না।

রেজিনা ক্যাসান্দ্রা

এই দক্ষিণি অভিনেত্রী এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘আমার ক্যারিয়ারের ব্যাপারে অন্য কেউ সিদ্ধান্ত নিক তা পছন্দ করি না। নিজের পছন্দমতো প্রকল্প বেছে নিই। ক্যারিয়ারে ১০ বছর পার করে ফেলেছি। এখনো টিকে আছি।’
জিফাইভে মুক্তি পাবে জানবাজ হিন্দুস্তান কে।