খবরটি প্রকাশ করে বেশ কিছু সর্বভারতীয় গণমাধ্যম।তবে তাঁর মেয়ে টুইটারে জানিয়েছেন, অভিনেতা বিক্রম গোখলের মারা যাননি।তবে তাঁর অবস্থা সংকটাপন্ন। 

হিন্দি, মারাঠি সিনেমা ও থিয়েটারে দাপিয়ে কাজ করেছেন বিক্রম গোখলে। তবে একসময় থিয়েটার থেকে পুরোপুরি বিদায় নেন। জানা গেছে, তাঁর গলায় বেশ কিছু সমস্যা দেখা দিয়েছিল। সেই কারণেই মঞ্চজগত থেকে বিদায় নিয়েছিলেন। বিক্রম গোখলে চলচ্চিত্রজগতে এসেছিলেন ২৬ বছর বয়সে। তাঁর প্রথম ছবি ‘পরওয়ানা’ মুক্তি পায় ১৯৭১ সালে। এ ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্র জীবনের প্রতি বীতশ্রদ্ধ এক চিকিৎসকের ভূমিকায় অভিনয় করে ছিলেন অমিতাভ বচ্চন।

সিনেমা ও থিয়েটারের পাশাপাশি টেলিভিশন এবং ওয়েব সিরিজেও কাজ করেছেন বিক্রম গোখলে। ‘অহংকার’, ‘ইন্দ্রধনুষ’, ‘আকবর বীরবল’, ‘জুনুন’, ‘শিব মহাপুরাণ’, ‘উড়ান’, ‘অগ্নিহোত্রা’, ‘ইয়া সুখান্ন ইয়া’, ‘চন্দন কা পালনা রেশম কি ডোরি’, ‘কুছ খোয়া কুছ পায়া’, ‘মেরা নাম করেগি রোশন’, ‘অল্পবিরাম’, ‘সঞ্জীবনী’, ‘বিরুদ্ধ’, ‘জীবন সাথী’, ‘সিংহাসন’–এর মতো ধারাবাহিকে দেখা গিয়েছে তাঁকে। ‘আম্বেদকর: দ্য লেজেন্ড’ নামের আপকামিং ওয়েব সিরিজেও অভিনয় করেছেন বিক্রম।

তাঁর অভিনীত উল্লেখযোগ্য ছবির মধ্যে আছে ‘হাম দিল দে চুকে সানাম’, ‘অগ্নিপথ’, ‘খুদা গাওয়া’, ‘ক্রোধ’, ‘বলবান’, ‘জজবাত’, ‘লাকি: নো টাইম ফর লাভ’, ‘কুছ তুম কাহো কুছ হাম কাহে’, ‘ভুল ভুলাইয়া’, ‘তুম বিন’, ‘ব্যাং ব্যাং’, ‘ফিরঙ্গি’, ‘হিচকি’, ‘আইয়ারি’, ‘মিশন মঙ্গল’ ইত্যাদি। মারাঠি ছবি ‘অনুমতি’-তে অভিনয়ের জন্য পেয়েছেন ভারতের সেরা অভিনেতার জাতীয় পুরস্কার। তাঁকে সর্বশেষ ‘নিকম্মা’ ছবিতে দেখা গেছে।