এদিকে জানা যায়, সালমান এর আগে সুকেশের সঙ্গে মেলামেশার ব্যাপারে জ্যাকুলিনকে সাবধান করেছিলেন। কিন্তু জ্যাকুলিন তখন সুকেশের প্রেমে এতটাই মত্ত যে বন্ধু সালমানের কথা কানে তোলেননি তিনি। তাই তো বিপদে পড়েছেন বলিউড নায়িকা জ্যাকুলিন। এখন সুকেশ চন্দ্রশেখরের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের মাশুল দিতে হচ্ছে তাঁকে।

default-image

কয়েক দিন আগেই ইওডব্লিউর তদন্তকারী কর্মকর্তারা জ্যাকুলিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন, কিন্তু তাঁর উত্তরে মোটেও সন্তুষ্ট হননি তাঁরা। তাই সোমবার আবার ইওডব্লিউর কর্মকর্তারা জ্যাকুলিনকে ডেকে পাঠিয়েছিলেন।

default-image

এদিন ইওডব্লিউর দপ্তরে প্রায় আড়াই ঘণ্টা দেরিতে পৌঁছেছিলেন এই শ্রীলঙ্কান রূপসী। গতকাল তাঁকে সাত ঘণ্টা ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। এদিনের প্রশ্নমালার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নগুলো ছিল সুকেশের সঙ্গে জ্যাকুলিনের সম্পর্কের কথা, সুকেশের থেকে দামি দামি উপহার তিনি কেন পেয়েছিলেন, সুকেশের সঙ্গে কতবার তাঁর সাক্ষাৎ হয়েছিল, কবে থেকে জ্যাকুলিন সুকেশকে জানতেন। ১৪ সেপ্টেম্বর জ্যাকুলিনকে আট ঘণ্টা ধরে জেরা করা হয়েছিল।

এদিকে ইডির চার্জশিট অনুযায়ী জ্যাকুলিন সুকেশের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে জানতেন। কিন্তু এই অভিনেত্রী এসব বিষয় এড়িয়ে গেছেন। আর সুকেশ থেকে ক্রমাগত উপহার নিয়েই গেছেন।

default-image

২০০ কোটি আর্থিক প্রতারণা মামলার সঙ্গে বলিউডের আইটেম ড্যান্সার নোরা ফতেহির নামও উঠে এসেছে। সম্প্রতি নোরাকেও ইওডব্লিউর প্রশ্নবাণের মুখোমুখি হতে হয়েছে। তবে নোরা স্পষ্ট জানিয়েছেন যে সুকেশের সঙ্গে তাঁর কোনো দিন সাক্ষাৎ হয়নি। সুকেশের সঙ্গে মাত্র দুইবার চ্যাটের মাধ্যমে কথা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন নোরা।

বলিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন