‘কারওয়া’ বা ‘দ্য জোয়া ফ্যাক্টর’ কোনোটিই বক্স অফিসে সফলতা পায়নি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘মালয়ালম ছাড়া অন্য কোনো ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির বক্স অফিসের চাপ আমি নিই না, তা সে তামিল, তেলেগু বা হিন্দি, যা–ই হোক। মালয়ালম ছবি কত স্ক্রিনে মুক্তি পেল, মুক্তির প্রথম দিন কত আয় করল—এমন নানা খবরাখবর রাখি। কিন্তু অন্য ইন্ডাস্ট্রিতে চাপমুক্ত হয়ে শুধু অভিনয় করতে চাই।’ বলিউডের বর্তমান পরিস্থিতি ভালো নয়, একের পর এক ছবি ফ্লপ হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে দুলকার বলেন, ‘সব ইন্ডাস্ট্রিকেই ভালো-মন্দ সময়ের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। দর্শকের পছন্দ আমাদের জানতে হবে, এটাই সবচেয়ে বড় কথা।’

২০১২ সালে ‘সেকেন্ড শো’ দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক হয় দুলকার সালমানের। ১০ বছরের ফিল্মি ভ্রমণ সম্পর্কে অভিনেতা বলেন, ‘নিজের এই সিনেমা-ভ্রমণ নিয়ে আমি গর্বিত। আমার ক্যারিয়ারে সেসব ছবিই করেছি, যা আমি অন্তর থেকে চেয়েছি। তবে এই সিনেমা-সফর নিয়ে আমার কোনো পরিকল্পনা ছিল না।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তারকাদের ব্যক্তিগত আক্রমণ করাটা এখন জলভাত হয়ে গেছে। এ ধরনের আক্রমণ দুলকার কীভাবে নেন, জানতে চাইলে অভিনেতা বলেন, ‘আমার মোবাইল ঘাঁটলে বেশ কিছু স্ক্রিনশট খুঁজে পাবেন, যেখানে আমাকে অত্যন্ত বাজেভাবে ব্যক্তিগত আক্রমণ করা হয়েছে। ইনস্টাগ্রাম, টুইটার, ইউটিউব—যেখানেই আমাকে আক্রমণ করা হয়, স্ক্রিনশট নিয়ে রেখে দিই। এমনকি যারা আমাকে বেশি আক্রমণ করে, তাদের আইডির নামও আমার মনে থাকে।’