পপি, নিরব ও মিম
পপি, নিরব ও মিম কোলাজ: আমিনুল ইসলাম
এই অপেক্ষা যে শেষ হওয়ার নয়, দেরিতে হলেও তা বুঝতে পারছেন তারকারা। তাই লম্বা বিরতি শেষে কাজে ফিরছেন বড় তারকারা।

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে গত মার্চ থেকে বন্ধ করে দেওয়া হয় চলচ্চিত্র ও সিনেমার শুটিং। কাজ থেকে বিরতি নিয়ে তারকারা নিজ নিজ বাড়িতে শুরু করেন তাঁদের সঙ্গনিরোধকাল। পরে জুন মাস থেকে নতুন স্বাভাবিক পরিস্থিতিতে সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলচ্চিত্র ও নাটকের শুটিং শুরু হয়। এক এক করে শিল্পীরা কাজে ফিরতে শুরু করেন। তবে কয়েকজন তারকা ছিলেন ব্যতিক্রম। শুটিং শুরু হয়ে গেলেও সেই তারকারা ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তেই বিরতির সময়কে দীর্ঘায়িত করেন। নিজের ও পরিবারের নিরাপত্তার কথা ভেবে করোনাকাল অবসানের অপেক্ষা করতে থাকেন। কিন্তু এই অপেক্ষা যে শেষ হওয়ার নয়, দেরিতে হলেও তা বুঝতে পারছেন তারকারা। তাই লম্বা বিরতি শেষে কাজে ফিরছেন বড় তারকারা।

default-image
বিজ্ঞাপন

নতুন স্বাভাবিকে ‘নবাব এলএলবি’ ছবি দিয়ে দীর্ঘ সাড়ে পাঁচ মাসের সঙ্গনিরোধকাল শেষ করেছেন নায়ক শাকিব খান। এর আগে পরীমনি ও সিয়াম ফিরেছেন ‘অ্যাডভেঞ্চার অব সুন্দরবন’ ছবির শুটিং দিয়ে। জুন মাসের শুরুর দিকে কাজে ফেরেন অভিনেতা জাহিদ হাসান, মোশাররফ করিম, নাদিয়া, মৌসুমী হামিদ, জোভান, তৌসিফ মাহবুব, তাসনিয়া ফারিন। জুলাই মাসের শেষের দিকে জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও মেহ্‌জাবীন চৌধুরী ঈদের নাটক দিয়ে শুটিং শুরু করেন। দীর্ঘ ছয় মাস পর ২১ সেপ্টেম্বর কাজে ফিরেছেন অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা।

default-image

সম্প্রতি নতুন স্বাভাবিকে শুটিং শুরু করা তারকাদের তালিকায় যুক্ত হলো চিত্রনায়িকা পপির নাম। করোনাকালের শুরু থেকেই খুলনায় অবস্থান করছিলেন চিত্রনায়িকা পপি। এই সময়ে এলাকার মানুষকে সহযোগিতা করার উদ্দেশ্যে বিভিন্ন দাতব্য কর্মসূচির অংশ হন তিনি। একসময় করোনাতেও আক্রান্ত হন। পরে করোনা জয় করে ঢাকায় ফেরেন এই অভিনেত্রী। ঢাকায় এসে প্রায় সাত মাস পর শুরু করেন চলচ্চিত্রের শুটিং। ১৮ সেপ্টেম্বর তিনি ‘ভালোবাসার প্রজাপতি’ ছবির কাজে যোগ দেন।

দীর্ঘ সময় পর কাজে ফেরা প্রসঙ্গে পপি বলেন, ‘শুটিংয়ে ফেরা নিয়ে খুবই চিন্তা আর ভয়ের মধ্যে ছিলাম। কিন্তু কত দিন আর বসে থাকব। কাজে তো একসময় ফিরতেই হবে। এখন অনেকেই কাজে ফিরছে। তা ছাড়া পরিস্থিতি তো একেবারেই ঠিক হয়ে যাবে না। এটা আরও দীর্ঘ সময় থাকবে। সেই জায়গা থেকে শারীরিক ও মানসিক শক্তি নিয়েই ফিরেছি।’

বিজ্ঞাপন
‘শুটিংয়ে ফিরে ভালো লাগছে। তবে সবকিছু যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে করা হচ্ছে, তা নয়। কাজ করতে গিয়ে মেকআপম্যান, প্রোডাকশন বয়সহ আরও অনেকে নিয়ম মানার কথা ভুলে যাচ্ছে।’
বিদ্যা সিনহা মিম
default-image

গত ছয় মাসে এক দিনের জন্যও বাসা থেকে বের হননি অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম। সেই মিম মুখে মাস্ক আর হাতে স্যানিটাইজার নিয়ে ২১ সেপ্টেম্বর থেকে ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছেন। ‘হ্যালো বেবি’ নামের নাটক দিয়ে চিরচেনা জগতে ফিরে বেশ খুশি এই মিম। বলেন, ‘শুটিংয়ে ফিরে ভালো লাগছে। তবে সবকিছু যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে করা হচ্ছে, তা নয়। কাজ করতে গিয়ে মেকআপম্যান, প্রোডাকশন বয়সহ আরও অনেকে নিয়ম মানার কথা ভুলে যাচ্ছে। শিল্পী হিসেবে এটা আমারও মনে থাকে না। বারবার চেষ্টা করছি নিয়ম মেনে কাজ করতে।’

বিজ্ঞাপন

অন্যদের চেয়েও লম্বা সময়ের বিরতি নেওয়া প্রসঙ্গে মিম জানান, নিরাপত্তার কারণে তাঁর মা-বাবা চাননি তিনি কাজে ফিরুন। এই অভিনেত্রীর মা-বাবা করোনার মাঝে তাঁর শুটিংয়ে অংশ নেওয়া নিয়ে ভয়ে ছিলেন।

default-image

মিম বলেন, ‘এখন করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক আছে, দেখে মনে হলো কাজে ফেরা যায়। তা ছাড়া আমাদের শুটিং চলছে টাঙ্গাইলের একটি রিসোর্টে। এখানে পর্যাপ্ত খোলামেলা জায়গা আছে। শুটিং শেষে বসার আলাদা রুম আছে। নিজের মেকআপ নিজেই করেছি। তবে আমি এই অবস্থায় নিয়মিত কাজ করতে চাই না। প্রতিটি কাজের ফাঁকে বড় একটা বিরতি দেব।’ আপাতত আর শুটিং করছেন না তিনি। কথা শেষে নতুন একটি ছবির খবর দিলেন মিম। জানালেন, অক্টোবর মাসের শেষের দিকে নতুন ছবি দিয়ে চলচ্চিত্রে ফিরবেন।

বিজ্ঞাপন

গত ১২ ফেব্রুয়ারি সর্বশেষ ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়েছিলেন চলচ্চিত্র অভিনেতা নিরব। তারপর টানা সাত মাস হলো শুটিং থেকে দূরে তিনি। আগামী মাস থেকে শুরু করবেন চলচ্চিত্রের কাজ। তাই নিজের অভিনয়কে একটু ঝালিয়ে নিলেন ওয়েব সিরিজে অভিনয় করে। ওয়েব সিরিজের নাম ‘জাল’।

default-image

নিরব বলেন, ‘অনেক দিন ধরেই চাচ্ছিলাম অভিনয় শুরু করি। কিন্তু করোনার এই সময়ে শুটিং সেট কতটা নিরাপদ, সেটা নিয়েই ভয় হচ্ছিল। অন্যদিকে কাজ থেকে দূরে থাকায় নিজের মধ্যে আলসেমিও ভর করেছিল। মনে হচ্ছিল ছবির আগে একটু কাজ করে চাঙা হওয়া উচিত। সেই কারণেই ওয়েব সিরিজের শুটিংয়ে যোগ দেওয়া।’ আগামী মাস থেকে এই অভিনেতা নিয়মিত ছবির কাজে ফিরতে চান।

মন্তব্য পড়ুন 0