বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সেদিন রাত আটটায় তানভীর মোকাম্মেল ও মোরশেদুল ইসলামকে স্মারক ও সম্মাননাপত্র প্রদানের পর উত্তরীয় পরিয়ে দেন মানজারে হাসীন মুরাদ ও নাসির উদ্দীন ইউসুফ। নিজেদের গড়া সংগঠনের পক্ষ থেকে সম্মাননা পেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন মোরশেদুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘যেকোনো সম্মাননা পেতে ভালো লাগে। আর শর্টফিল্ম ফোরামের সঙ্গে আমি শুরু থেকেই জড়িত। সময়ের সঙ্গে শর্টফিল্ম ফোরামের রূপ অনেক পাল্টেছে। এখানে সফলতা আছে, ব্যর্থতা আছে। এখন যাঁরা কাজ করছেন, তাঁরা অনেকেই আমাদের যে বিকল্প ধারার আন্দোলন ছিল, সেটা দ্বারা প্রভাবিত বা অনুপ্রাণিত। এটাই আমাদের সাফল্য। আমার সেই প্রাণের সংগঠনের কাছ থেকে সম্মাননা পাওয়া আমার আনন্দ বাড়িয়ে দিয়েছে।’

default-image

আজীবন সম্মাননা পাওয়া গুণী দুই নির্মাতাই বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের সঙ্গে সূচনালগ্ন থেকে জড়িত। তানভীর মোকাম্মেল বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের প্রথম সভাপতি এবং মোরশেদুল ইসলাম ছিলেন সাধারণ সম্পাদক। বাংলাদেশের বিকল্প ধারার প্রথম দুই ছবির নির্মাতাও তাঁরা। মোরশেদুল ইসলাম নির্মাণ করেন ‘আগামী’ আর তানভীর মোকাম্মেল ‘হুলিয়া’। তারপর থেকেই বিকল্প ধারার সিনেমা নির্মাণে আগ্রহী হয়ে ওঠেন তরুণ নির্মাতারা।

default-image

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হাসান। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা প্রাঙ্গণে বিকেল চারটায় সমবেত জাতীয় সংগীত এবং ৩৬টি বেলুন ওড়ানোর মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন হয়। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ‘আগামী’, ‘হাজারিবাগ ইন শটস’, ‘পোস্টার’, ‘ইতি সালমা’ এবং ‘বিস্মরণের নদী’—এই পাঁচ স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়। মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন মানজারে হাসীন মুরাদ, নাসির উদ্দীন ইউসুফ, জাহিদুর রহিম অঞ্জন, জুনায়েদ হালিম, আমিনুর রহমান, জহিরুল ইসলাম কচিসহ অনেকে। সবশেষে বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মাণ কর্মশালার আওতায় নির্মিত ‘বিপ্রতীপ’ এবং ‘যে গল্পের রং নেই’ নামে দুটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন