ছবির নির্মাতা আশুতোষ সুজন বলেন, ‘আমরা বড় একটি বাড়ি পেয়ে নিশ্চিন্ত ছিলাম। কিন্তু শুটিং করতে গিয়ে দেখি, দুই ভাইয়ের মধ্যে ঝগড়া হওয়ায় বাড়ির মাঝে দেয়াল তুলে দিয়েছেন। তাঁরা কোনোভাবেই এক ভাই আরেক ভাইয়ের মুখ দেখবেন না। বিপদে পড়ে গেলাম। তাঁদের বললাম, মৌসুমী আপু, রুবেল ভাইদের আর শিডিউল পাওয়া যাবে না। সিনেমার ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে যাবে। কিন্তু এসব বলে কোনো লাভ হয়নি।’

default-image

নির্মাতা বলেন, ছবির জন্য নির্ধারিত সময়ে শুটিং তাঁদের করতেই হবে। কারণ, মৌসুমী, আহমেদ রুবেল, ইয়াশ রোহানের মতো তারকারা এ ছবিতে অভিনয় করছেন। নির্ধারিত সময়ে শুটিং না হলে এ বছর আর তাঁদের শিডিউল পাওয়া যাবে না।

এরপর দুই ভাইয়ের সঙ্গে দফায় দফায় বসেন নির্মাতা ও সিনেমাসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। পরে এলাকার লোকজনের সঙ্গে মিটিং করেন। একপর্যায়ে সিদ্ধান্ত হয় দুই ভাইয়ের বিবাদ মিটিয়ে দেওয়ার। এলাকার লোকজনের সহযোগিতায় আবার দুই ভাই এক হয়ে যান। তাঁদের ঝগড়া মিটিয়ে ফেলেন। নির্মাতাও সেপ্টেম্বরে ছবির শুটিং করেন। তিনি বলেন, ‘শুনেছি, তাঁরা এখনো মিল–মহব্বতেই আছেন।’

default-image

ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে শেষ হয়েছে ছবিটির শুটিং। আজ ১৪ ডিসেম্বর সিনেমাটির প্রথম পোস্টার প্রকাশিত হলো। নির্মলেন্দু গুণের একই নামের উপন্যাস অবলম্বনে সিনেমাটি তৈরি করা হচ্ছে। এখন সম্পাদনার কাজ চলছে। শিগগিরই শুরু হবে ডাবিং। আগামী বছরের মার্চে সিনেমাটি মুক্তির পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান পরিচালক।

default-image

আশুতোষ সুজন বলেন, ‘আমরা চার মাসে ২৮ দিন শুটিং করেছি। প্রতিদিনই সিনেমার অভিনয়শিল্পীদের কাছ থেকে অসাধারণ রেসপন্স পেয়েছি। “দেশান্তর” মুক্তির জন্য প্রস্তুত করছি। আমরা চাইছি, এখন থেকে কিছু প্রচারণায় অংশ নিতে। আজ পোস্টার মুক্তির পর থেকে ধারাবাহিকভাবে প্রচারণার কাজ করব আমরা।’

দেশপ্রেম ও নারী জাগরণের গল্প নিয়ে ‘দেশান্তর’ সিনেমার গল্প। উপন্যাসটির প্রধান নারী চরিত্রের নাম অন্নপূর্ণা। এ ভূমিকায় অভিনয় করেছেন চিত্রনায়িকা মৌসুমী। এ ছাড়া মামুনুর রশীদ, আহমেদ রুবেল, ইয়াশ রোহান, রোদেলা টাপুরসহ আরও অনেকে অভিনয় করেছেন।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন