বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারে বেড়ে ওঠার কারণেই শৈশব থেকে রণাঙ্গনের যুদ্ধের ভয়াবহ ঘটনাগুলো খুব কাছ থেকে শোনা খিজির হায়াতের। শিহরণ জাগানো সেসব ঘটনা নিজের মধ্যে লালন করতেন খিজির হায়াত খান। একসময় এই নির্মাতার কাছে মনে হয় গল্পটি বলা দরকার। তিনি বলেন, ‘আমার দুই মামা বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। একজন যুদ্ধ করতে গিয়ে রণাঙ্গনে শহীদ হন। স্বাধীন দেশের ৫০ বছর ও সব বীর মুক্তিযোদ্ধার প্রতি সম্মান জানাতেই আমার এই সিনেমা।’

default-image

সিনেমাটির জন্য ছয় মাস ধরে প্রস্তুতি নিচ্ছেন। শুটিংয়ের জন্য চীন ও জার্মানি থেকে অনুমতি নিয়ে বানিয়ে আনা হয়েছে ডামি রাইফেল। চলছে অন্যান্য প্রস্তুতি।

default-image

নির্মাতা বলেন, ‘রণাঙ্গনের গল্প আমরা হলিউডের সিনেমায় বেশি দেখি। কিন্তু আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে এমন অনেক ঘটনা আছে, যেগুলো নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা প্রয়োজন। কারণ, এর পেছনে অনেক ত্যাগ রয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এর আগে “ওরা ১১ জন” সিনেমায় রণাঙ্গনের যুদ্ধ উঠে এসেছিল। আমাদের গল্পে পুরো যুদ্ধ দেখানো হবে। যুদ্ধের ময়দানেই সিনেমার শুরু ও শেষ।’

default-image

গল্পে দেখানো হবে, দুই দিনের জন্য একদল বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রতিরোধযুদ্ধে যান। সাতজনের সেই দল দুই দিনের জন্য গেলেও তাদের সাত দিন যুদ্ধের ময়দানে কেটে যায়। সিনেমার শুটিং লোকেশন সিলেট। মুক্তিযুদ্ধের ৫ নম্বর সেক্টর ঘেঁষে বর্ডার এলাকায় শুটিং হবে। আগামী ২৭ তারিখ থেকে টানা ৪০ দিন শুটিং হওয়ার কথা রয়েছে।

খিজির হায়াত খানের প্রথম ছবি ‘অস্তিত্বে আমার দেশ’। ২০১০ সালে নির্মাণ করেন ‘জাগো’। ২০১৮ সালে মুক্তি পাওয়া ‘মি. বাংলাদেশ’ সিনেমাটি লেখার পাশাপাশি মূল চরিত্রে অভিনয় করেন খিজির হায়াত।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন