বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নির্মাতা বলেন, ‘প্রথম টার্গেট পূরণ করতে পেরেছি। কিন্তু অনেক বেগ পেতে হয়েছে। শুটিংয়ে নায়ক–নায়িকা দেখে মানুষ মৌমাছির মতো ঘিরে ধরেছিল। আউটডোরে শুটিং শেষ করে আমরা দ্রুত জামদানিপল্লিতে কাজ শুরু করি।’
সিনেমার অভিনেত্রী শিবা আলী খান বলেন, ‘আমি আগেও সিনেমায় অভিনয় করেছি কিন্তু এবারেরটাই সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জিং চরিত্র। আমার চরিত্রটির জামদানিপল্লিতে ভালো রং করার জন্য সুনাম রয়েছে। তথ্যচিত্র দেখে প্রস্তুতি নিলেও ভয়ে ছিলাম। প্রথম দিনে শুটিং করে ভয়টা কেটেছে। দেশের ঐতিহ্য বহন করে, এমন বিষয়ের সঙ্গে জড়িত হতে পেরেছি, এটা আমার জন্য অনেক ভালো লাগার।’
রোশান এর আগে জানিয়েছিলেন, একটি ছেলে জামদানি নিয়ে স্বপ্ন দেখে। এর সঙ্গে যুক্ত মানুষের হয়ে কথা বলে। সে চায়, শিল্পটা আরও বেশি দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে যাক। সব মিলিয়ে সিনেমার গল্প ও পরিকল্পনা ভালো লাগায় তিনি সিনেমায় যুক্ত হয়েছেন।
সিনেমাটির বিষয়বস্তু নিয়ে তিন বছর গবেষণা করেছেন অনিরুদ্ধ রাসেল। খুব কাছ থেকে তাঁরা জামদানির সঙ্গে যুক্ত মানুষের জীবনযাপন দেখে আজ ২৮ অক্টোবর থেকে শুটিং শুরু করেন। আগামীকাল সকাল ছয়টা থেকে সিনেমার শুটিং শুরু হবে নারায়ণগঞ্জের জামদানি হাটে। শুটিংয়ে আরও অংশ নেবেন শহীদুজ্জামান সেলিম, ফজলুর রহমান বাবু, আলী রাজ।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন