default-image

এই তো সেদিন, ক্যারিয়ার শুরু করেছিলেন নুসরাত ইমরোজ তিশা। অভিনয় করতেন তরুণ বয়সের সঙ্গে মানানসই সব চরিত্রে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই কোনো তরুণের প্রেমিকার ভূমিকায়। তাঁর অভিনয় প্রশংসা পেয়েছে প্রায় সব বয়সী নাট্যপ্রেমী দর্শকের কাছে। পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকীকে বিয়ে করার মধ্য দিয়ে অভিনয়ের বাইরে প্রথম আলোচনায় আসেন তিশা। এরপর যতই দিন গড়াতে থাকে, ভক্ত ও নিন্দুকদের মধ্যে প্রশ্ন ওঠে—দুই থেকে কবে তিন হবেন দুজন। কাঁটা বিছানো সেই প্রশ্নসংকুল পথ পাড়ি দিয়ে অভিনেত্রী–পরিচালক দম্পতি করে ফেললেন ডুব, শনিবার বিকেল, নো ল্যান্ডস ম্যান–এর মতো উৎসাহজাগানো সিনেমা। যদিও শেষ ছবি দুটি এখনো বাংলাদেশে মুক্তি পায়নি। এরই মধ্যে হঠাৎ তিশার ডাক পড়ে অন্য রকম এক চরিত্রে, কাঁধে এসে পড়ে গুরুদায়িত্ব। তিশা হয়ে যান রেণু, পর্দার বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব। আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত পরিচালক শ্যাম বেনেগালের মুজিব: একটি জাতির রূপকার ছবিতে অভিনয় করছেন তিনি। বাংলাদেশের জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনীচিত্রে তাঁর স্ত্রীর ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য এক টাকা সম্মানী নেওয়ার ঘোষণায় আবারও চমৎকৃত হন তিশার ভক্তরা। তারপর তিশা দিলেন সর্বশেষ সুসংবাদ, মেয়ের মা হয়েছেন তিনি। মাতৃত্বকালীন ছুটি শেষ করে গত রোববার থেকে কাজেও ফিরেছেন তিনি।

default-image

মিথিলাকেও পর্দায় পাওয়া যেত প্রেমিকা নয়তো স্ত্রীর ভূমিকায়। সেও টেলিভিশন নাটকে। কণ্ঠশিল্পী তাহসানের সঙ্গে বিচ্ছেদ, শিল্পী জনের সঙ্গে প্রেম ও স্পর্শকাতর ছবি ফাঁসের পর মিথিলাকে নিয়ে কম আলোচনা হয়নি। সেসব পাড়ি দিয়ে এগিয়ে গেছেন মিথিলা। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পরিচালক সৃজিতকে বিয়ে করার পরও তুমুল আলোচনার সৃষ্টি হয়। ধীরে ধীরে ভারতীয় নির্মাতাদের ওয়েব সিরিজ ও সিনেমায় যুক্ত হন মিথিলা। চলতি বছর ঢাকায় অনন্য মামুনের অমানুষ ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। তবে ঢালিউডের আগে কলকাতায় আগে মুক্তি পাচ্ছে মিথিলার সিনেমা শৌভিক কুণ্ডু পরিচালিত আয় খুকু আয়। সেখানে আর প্রেমের গল্প নয়, একজন মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন মিথিলা, আর প্রসেনজিৎ থাকবেন তাঁর বিপরীতে। কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়ের মায়া ছবিটির কাজও রয়েছে শেষ পর্যায়ে। সবচেয়ে বড় কথা, আলোচিত ও বহুল প্রশংসিত সব সিনেমার পরিচালক স্বামী সৃজিতের কোনো ছবিতে তিনি অভিনয় করবেন, সেই অপেক্ষায় আছেন মিথিলার ভক্তরা।

ঢালিউডের আরেক আলোচিত নায়িকা পরীমনির পরিভ্রমণ এবার যেন এক অন্যমাত্রা পেতে যাচ্ছে। মা হতে যাচ্ছেন তিনি। মা দিবসে সাগরের তীর থেকে গর্ভাবস্থার ছবি পোস্ট করে তিনি জানান দিয়েছেন, দীর্ঘ এক অস্থির জীবনে তিনি নতুন দায়িত্বের জন্য প্রস্তুত। স্বামী শরিফুল রাজের সঙ্গে সংসারেও জমে উঠেছে। প্রথাগত নাচ–গান–মারপিটের ছবিতে নায়িকা হিসেবে পরীমনিকে পর্দায় পাওয়া যেত, মামলা–মোকদ্দমায় জর্জর পরীমনিকে টেলিভিশনের খবরে কথা বলতে দেখা যেত, ফেসবুক লাইভ বা ভিডিওতে আঁচ করা যেত অভিভাবকহীন অনিরাপদ বেড়ে ওঠা তরুণীর অস্থির জীবন, সে এখন গৃহী এক নারী। অরণ্য আনোয়ারের মা ছবির শুটিংয়ে প্রথম মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন তিনি, যে ছবিটি এখনো রয়েছে সম্পাদকের পর্দায়। শিগগিরই হয়তো আসবে দর্শকের সামনে। তার আগে বাস্তব জীবনে মা হচ্ছেন পরীমনি।

default-image

ঢালিউডের মতো এখানকার নায়িকারাও পরিণত হচ্ছেন। তাঁদের জীবনেও লাগতে শুরু করেছে বাস্তবতার হাওয়া। কেবল প্রেমে টালমাটাল গল্পের সিনেমা থেকে বেরিয়ে তাঁরা বাস্তব চরিত্রের দেখা পেতে শুরু করেছেন। স্ত্রী থেকে সন্তানের মা হয়েছেন বা হচ্ছেন। পর্দায়ও প্রেমিকা বা স্ত্রী থেকে মায়ের চরিত্রে ঢুকে পড়ছেন। যেমনটি দেখা গেল রেহেনা ছবিতে আজমেরী হক বাঁধনকেও। বহু চড়াই–উতরাই পেরোনো ঢালিউডের এই নায়িকাদের ভ্রমণ নব্বইয়ের দশকের আলোচিত নায়িকাদের মতো হবে না, সেই আশা তো করাই যায়।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন