বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

প্রেক্ষাগৃহ থেকে বসার ঘর, সবখানে নিজের উপস্থিতি নিয়ে আনন্দিত বুবলী। কেমন লাগছে? জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ঈদে সব শিল্পীরই নিজের কাজ নিয়ে একটা ভালো লাগা কাজ করে। দুই বছর পর ঈদে আমার সিনেমা প্রেক্ষাগৃহে উঠছে। প্রেক্ষাগৃহে অনেকে সিনেমা দেখতে যান না বা সময় হয় না। ঈদের ছুটিতে বাসায় বাসায় টেলিভিশনে আমার পাঁচটি সিনেমা প্রথমবারের মতো দেখার সুযোগ পাবেন টিভির দর্শকেরা। দেশ ও দেশের বাইরে অসংখ্য মানুষ ওটিটিতে আমার কাজ দেখবেন। মনে হচ্ছে আমার ঈদ যেন আগেই শুরু হয়ে গেছে। এই ভালো লাগা ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না।’

default-image

ঈদে শুধু নিজের সিনেমাই নয়, পর্যায়ক্রমে ‘শান’ ও ‘গলুই’ও দেখবেন প্রেক্ষাগৃহে। জানালেন ঈদের পরদিন যেকোনো একটি হলে ‘বিদ্রোহী’ সিনেমাটি দেখবেন বুবলী। তিনি বলেন, ‘লোকাল সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমা দেখার মজাই আলাদা। সেখানে দৃশ্যে দৃশ্যে দর্শকের প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়। ছদ্মবেশে এ রকম হলে গিয়ে আমি অনেকবার সিনেমা দেখেছি। শিস বাজানো থেকে শুরু করে নায়ক-নায়িকার গানের সময় হলের মধ্যে দর্শকদের নাচতেও দেখা যায়। এইসব হলে বাংলা সিনেমা দেখার আসল স্বাদটা পাওয়া যায়। দর্শকসারিতে বসে একজন অভিনেত্রীর এমন পরিবেশে নিজের সিনেমা দেখার অনুভূতিই অন্য রকম।’

default-image

ঈদে বড় বোনসহ আত্মীয়স্বজনের কাছ থেকে উপহার পান বুবলী। নিজের জন্য তাই তেমন কিছু আর কিনতে হয় না। তবে প্রতিবার ঈদে মা–বাবাসহ পরিবারের ছোট–ড় সবার জন্যই নিজ হাতে কেনাকাটা করেন তিনি। সম্প্রতি ‘বিট্রে’ সিনেমার শুটিং শেষ করে কক্সবাজার থেকে ঢাকায় ফিরেছেন এই নায়িকা। তাই এখনো সময় পাননি। সোমবার শুরু করবেন কেনাকাটা। তিনি বলেন, ‘এবার শাড়ি, সালোয়ার–কামিজ মিলে প্রায় ২০টি ঈদের পোশাক পেয়েছি। নিজে আর কী কিনব! ঈদের সময় পরিবারের সবার জন্য নিজ হাতে কেনাকাটা করি আমি। এটা আমার ভীষণ ভালো লাগার একটা ব্যাপার। এটা আমাকে অন্য রকম আনন্দ দেয়।’

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন