বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এই ঢালিউড অভিনেত্রী বলেন, ‘এভাবে ক্যান্ডেল লাইট ডিনারের অভিজ্ঞতা আমার এবারই প্রথম। সন্ধ্যার আলো–ছায়ায় সমুদ্রের পানির ওপরে তৈরি ঘরের সামনে একান্তে দুজনের সময় কাটানো মুহূর্তগুলো স্বপ্নের মতো। শান্ত সমুদ্রের পানির শব্দ, সমুদ্রের পাখিদের ডাক—কী যে ভালো লাগছিল, বলে বোঝানো মুশকিল। এমন আনন্দ আর ভালো লাগার মুহূর্ত আমার জীবনে আর আসেনি।’

default-image

বিয়ের দুই মাসের মাথায় ১৫ ফেব্রুয়ারি মধুচন্দ্রিমায় যান মিমরা। পাঁচ দিন ছিলেন সেখানে। শুটিং, শপিং, সাজানো সেট, জনারণ্য থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে ওই দ্বীপে একান্তে দুজনের প্রতিটি ক্ষণ ছিল মধুময়। মিম বলেন, ‘একান্তে সময় কাটাতেই ওই দ্বীপে গিয়েছিলাম আমরা। বিচের পাশেই সবুজে ঘেরা ছোট ছোট টিলা। সবুজ প্রকৃতির সঙ্গে হাঁটা, সমুদ্রের সঙ্গে থাকাই ছিল আমাদের কাজ।’

default-image

ইচ্ছা ছিল সমুদ্রে সূর্যোদয় দেখার। কিন্তু মনোমুগ্ধকর সেই পরিবেশ দেখার সুযোগ মিমদের হয়নি। এ জন্য আফসোস রয়ে গেছে মিমের। তিনি বলেন, ‘প্রতি রাতেই ঘুমাতে যাওয়ার আগে আমরা আলাপ করতাম, ভোরে সমুদ্রের ওপর থেকে সূর্য ওঠা দেখব, দেখব শান্ত সমুদ্র। কিন্তু এক দিনও পারতাম না। ঘুম থেকে উঠেই দেখতাম সূর্য উঠে গেছে। এই আফসোস রয়ে গেছে।’ প্রতিদিন সকালের নাশতা শেষে মিমরা মাছ ধরতে গেছেন। সমুদ্রের ওপর কাঠের সাঁকোয় বসে নীল জলে পা ডুবিয়ে বড়শিতে মাছ ধরতেন। সেই মাছ আবার সমুদ্রেই ছেড়ে দিতেন তাঁরা।

default-image

এই অভিনেত্রী বলেন, ‘এভাবে আগে কখনো মাছ ধরিনি। বড়শিতে বিভিন্ন রঙের ছোট ছোট মাছ ধরতাম আর ছেড়ে দিতাম। যখন ছেড়ে দিতাম, মাছগুলোর পালিয়ে যাওয়া উপভোগ করতাম আমরা।’

default-image

দুজনার রোমান্টিক কোন মুহূর্তের স্মৃতি মনে থাকবে অনেক দিন? মিম জানান, যে ঘরে তাঁরা থাকতেন, সেটার একটি সিঁড়ি নেমে গেছে সমুদ্রের জলে। প্রথম দিন থেকেই মিমের ইচ্ছা ছিল ওই সিঁড়ি দিয়ে পানিতে নামবেন। কিন্তু বাদ সাধেন তাঁর স্বামী সনি। জায়গাটি সৈকত থেকে বেশ দূরে। পানিতে নেমে যদি কোনো বিপদ হয়!

default-image

এ কারণে মিমকে জলে নামতে দিচ্ছিলেন না সনি। কিন্তু মিম নাছোড়বান্দা। ফিরে আসার আগের দিন মিম সিদ্ধান্ত নিলেন পানিতে তিনি নামবেনই। মিমের পানিতে নামার সেই দৃশ্য ভিডিও করেছেন সনি। মিম বলেন, ‘সনি আমাকে বলে কী জানেন, “আমি জানি না। তুমি নিজের ইচ্ছায় নামছ। কিছু ঘটে গেলে যাতে আমার দোষ না হয়, এ জন্য ভিডিও করে রাখছি।” চিন্তা করেন, কত্ত খারাপ সনি। হা হা হা।’ ১৯ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরেছেন মিম। তবে এখনো কাজে যোগ দেননি।

default-image
ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন