বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

মাহি বলেন, ‘ভক্তরা আমার সিনেমা দেখতে চান, আমাকে পছন্দ করেন, আমাকে ফেসবুকে অনুসরণ করেন, এটা আমার বড় পাওয়া। চলচ্চিত্রে এসে এমন অনেক কিছু পেয়েছি। এত তাড়াতাড়ি পাব, ভাবিনি। আবার আফসোসও আছে। দেশের একদম সীমান্তে এলাকায় গিয়েও যদি কাউকে বলা যায়, শাবনূরকে চেনেন কি না? সঙ্গে সঙ্গে তাঁরা চিনতে পারবেন। তিনি সেভাবেই দর্শকের কাছে পৌঁছেছেন। দেশের আনাচকানাচে শাবনূর আপাকে দর্শক চেনেন। সেই জায়গায় হয়তো এখনো সেভাবে দর্শকের কাছে পৌঁছাতে পারি নাই। সে রকম একটা জায়গায় গেলে আফসোস কমত। যেতে পারব কি না, জানি না। দেশের সব শ্রেণির দর্শক যেন আমার কাজকে পছন্দ করেন, এখনো সেই চেষ্টা করছি।’

default-image

প্রথম সিনেমা মুক্তির পর মাহিকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। পরের বছরই মুক্তি পায় তাঁর চারটি সিনেমা। সেই বছর, ২০১৩ সালে মুক্তি পাওয়া জাকির হোসেন রাজুর ‘পোড়ামন’ সিনেমার পরি চরিত্রটি তাঁর ক্যারিয়ারে ভিন্ন মাত্রা যোগ করে। পরের বছর মুক্তি পায় ছয়টি সিনেমা। ‘অগ্নি’, ‘দবির সাহেবের সংসার’, ‘দেশা: দ্য লিডার’, ‘অনেক সাধের ময়না’ সিনেমাগুলো তাঁর ক্যারিয়ারকে আরও বেশি পাকাপোক্ত করে। পরে কিছুটা বাছবিচার করে কাজ করতে থাকেন মাহি। হুমায়ূন আহমেদের গল্প নিয়ে ‘কৃষ্ণপক্ষ’, পরে ‘ঢাকা অ্যাটাক’, ‘জান্নাত’সহ একাধিক সিনেমায় নতুন করে নিজেকে পর্দায় হাজির করেন। জাজ মাল্টিমিডিয়ার হাত ধরে আসা মাহি এখনো তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ। আজ তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, ‘ধন্যবাদ জাজ মাল্টিমিডিয়া। ওপরওয়ালার পরে আপনাদের জন্যই আজকে আমি মাহিয়া মাহি।’

default-image

দীর্ঘ ক্যারিয়ারে বিয়ে, বিবাহবিচ্ছেদ, প্রেম, জন্মদিনসহ নানা কারণে আলোচনা-সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছেন মাহিয়া মাহি। সবশেষ তাঁর বিয়েকে ঘিরে তৈরি হয় আলোচনা। ১৩ সেপ্টেম্বর রাতে ফেসবুকে বিয়ের খবর জানান এই অভিনেত্রী। তাঁর স্বামী কামরুজ্জামান সরকার রাকিব রাজনীতি ও ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত। সম্প্রতি তাঁরা ঢাকায় নতুন বাসায় উঠেছেন। সেই খবর ফেসবুকে জানিয়ে মাহি লিখেছেন, ‘আমার সব স্বপ্ন একটা একটা করে পূরণ করার জন্য আমার আজীবনের কৃতজ্ঞতা তোমার প্রতি (রাকিব সরকার)।’ বিয়ের পরেই মাহি ফিরেছেন ‘বুবুজান’ সিনেমায়। বর্তমানে তাঁর হাতে রয়েছে ‘যাও পাখি বলো তারে’, ‘নরসুন্দরী’সহ একাধিক সিনেমার কাজ।

default-image
ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন