default-image

দীর্ঘদিন ধরে নানা সমস্যায় জর্জরিত এই ইন্ডাস্ট্রি অতীত গৌরব হারিয়েছে। সিনেমা হল কমে গেছে। নেই বড় বাজেটের ছবি। নেই এফডিসির আগের চেহারা। কাজে লাগানো হচ্ছে না অভিজ্ঞ অভিনয়শিল্পীদের। এসব নিয়ে বেশ চিন্তিত অভিনয়শিল্পী অমিত হাসান। সমস্যা কাটিয়ে চলচ্চিত্রকে সোনালি যুগে ফিরে যেতে অনেক বছর লাগবে বলে মনে করেন এই অভিনেতা।

প্রায় তিন যুগ আগে অমিত হাসানের চলচ্চিত্রের ক্যারিয়ার শুরু। তখন বাংলা চলচ্চিত্রে ছিল সোনালি যুগ। দেশে সিনেমা হল ছিল ষোলো শ। রাজ্জাক, আলমগীর, কবরী, ববিতা, শাবানার মতো অভিনয়শিল্পীদের সঙ্গে শুটিং করেছেন। অনেককেই দেখেছেন এক দিনে দুই থেকে তিনটি শুটিং ইউনিটে অভিনয় করতে। তখন পার্শ্ববর্তী দেশের চেয়েও অনেকাংশেই এগিয়ে ছিল ঢালিউড। সেই ঢালিউড তার ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলেছে। এসব ভাবলেই মন খারাপ হয় তাঁর। এই অভিনেতা মনে করেন, গত কয়েক বছরের তুলনায় ২০২০ সালে ঢালিউড কিছুটা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টায় ছিল। সেখানে করোনা বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

বিজ্ঞাপন

অমিত হাসান বলেন, ‘আমাদের হল নেই। অন্যদিকে ওটিটি প্ল্যাটফর্মগুলো চাঙা হচ্ছে। সেখানে চলচ্চিত্রকে টিকে থাকতে হলে ভালো বাজেট ও ভালো মানের ছবি দরকার। করোনা শুরু হওয়ার পর থেকে এখনো ইন্ডাস্ট্রিতে আতঙ্কই কাটেনি। এখনো থমকে আছে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি। বাণিজ্যিক ছবির জন্য যে আয়োজন দরকার, তেমন আয়োজনের ছবি হচ্ছে না। স্বল্প বাজেটের কিছু ছবির শুটিং শুরু হলেও এসব ছবি দিয়ে চলচ্চিত্রে খুব একটা উন্নয়ন হবে না। ইন্ডাস্ট্রি ঘুরে দাঁড়ানোর জন্য প্রচুর লগ্নি দরকার।’

default-image

অমিত হাসান আরও জানান, করোনাকালে পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে ঢালিউড। এই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে অনেক সময় লাগবে। চলচ্চিত্রের জন্য আলাদা একটা প্ল্যানিং লাগবে।

অমিত হাসানের ক্যারিয়ার শুরু হয়েছিল নায়ক হিসেবে। টানা দুই যুগের বেশি সময় ধরে নায়ক হিসেবে অভিনয় করেছেন। কয়েক বছর ধরে তাঁকে খল চরিত্রে বেশি দেখা যাচ্ছে। এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, অভিনেতা হিসেবে যেকোনো চরিত্রেই অভিনয় করতে তাঁর ভালো লাগে। শুধু একটাই শর্ত, চরিত্রে গুরুত্ব থাকতে হবে। তিনি বলেন, ‘আমি নায়ক হিসেবে প্রচুর ছবিতে অভিনয় করেছি। নায়কের প্যারালাল চরিত্রে অভিনয় করেছি। গল্পের হিরো হলেই আমি অভিনয় করি। এখন বেশির ভাগ ছবিতে প্রধান খল চরিত্রে অভিনয় করি। এখানে আমার আলাদা একটি ভূমিকা থাকে। নায়ক হিসেবে অভিনয় করে এসেছি। এখন ব্যতিক্রমধর্মী চরিত্র ভালো লাগে।’

বর্তমান চলচ্চিত্রে ঢালিউডের অভিজ্ঞদের সেভাবে কাজে লাগানো হচ্ছে না। তিনি মনে করেন, দেশের অনেক চলচ্চিত্র অভিনয়শিল্পী আছেন, যাঁদেরকে ভেবে গল্প লিখলে অনেক দর্শককে হলে ফেরানো যাবে। এই অভিনয়শিল্পীরা পরীক্ষিত। একদিকে এই অভিজ্ঞদের ব্যবহার করা হচ্ছে না, অন্যদিকে তরুণ অভিনয়শিল্পীও তৈরি হচ্ছে না। এভাবে চললে একটা ইন্ডাস্ট্রি টিকে থাকা কঠিন। তিনি বলেন, ‘অভিনয় ছাড়া অন্য কিছু শিখিনি। তাই চেষ্টা করছি অভিনয়টাই করে যেতে। মাঝেমধ্যে পেছনে তাকালে খুবই কষ্ট লাগে।’

default-image


করোনার শুরু থেকে সাত মাস কোনো ছবিতে অভিনয় করেননি অমিত হাসান। পরে নভেম্বর থেকে শুটিং শুরু হয়। এই সময়ে তিনটি ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। সব কটি ছবিতেই তাঁকে প্রধান খল চরিত্রে দেখা যাবে। তিনি সম্প্রতি শুরু করেছেন ‘যন্ত্রণা’ ছবির কাজ। এটি পরিচালনা করেছেন অপূর্ব রানা। ছবিতে অভিনয় করেছেন আমান রেজা, প্রিয়াংকা জামানসহ আরও অনেকে। অমিত হাসান অভিনীত ১২ মার্চ মুক্তি পাবে ‘তুমি আছ তুমি নেই’। এই ছবিতে খল চরিত্রে অভিনয় করেছেন অমিত হাসান। ছবির মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন আসিফ ইমরোজ ও দীঘি।

default-image
বিজ্ঞাপন
ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন