উচ্ছ্বসিত মিতু বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘এ উৎসবে পৃথিবীর বহু দেশের সিনেমা প্রদর্শিত হবে। প্রযোজক,পরিচালকদের পাশাপাশি ওই সব দেশের নায়ক ও নায়িকাদেরও আমন্ত্রণ জানায় ভারত সরকার। আমি ভাগ্যবান, ভারত সরকারের ইস্যু করা আমন্ত্রণপত্র পেয়েছি। কারণ, আমার এখনো একটি সিনেমাও মুক্তি পায়নি। তার আগেই এ ধরনের উৎসবে আমাকে সরকারিভাবে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। এই ভালো লাগার কথা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়।’

এই নবাগত অভিনেত্রী আরও বলেন, ‘উৎসবে ৭৯টি দেশের মোট ২৮০টি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। অনেক নামকরা পরিচালক, প্রযোজক, নায়ক-নায়িকারা আসবেন। বিভিন্ন দেশের সিনেমা দেখার সুযোগ হবে। শিল্পী, পরিচালক, প্রযোজক ও কলাকুশলীদের সঙ্গে মেশার সুযোগ হবে, কথা বলার সুযোগ হবে, তাঁদের সংস্কৃতি সম্পর্কে জানার সুযোগ হবে। একটা বিরাট অভিজ্ঞতা নিয়ে ফিরতে পারব।’

সুযোগটা কীভাবে হলো? জানতে চাইলে মিতু বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে এটি সম্ভব হয়েছে। উৎসবে বিভিন্ন দেশের সম্ভাবনাময় অভিনয় শিল্পীদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। ভারত সরকারের যারা এই উৎসব আয়োজনের সঙ্গে জড়িত, তাঁদের সঙ্গে আমার কোনো পরিচয় নেই। ফেসবুক আইডির অ্যাকটিভিটি দেখে হয়তো আমার খবর নিয়েছেন। আমাকে সম্ভাবনাময় মনে করেছেন। এরপর আমাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন তারা।’

এদিকে ২০ নভেম্বর থেকে উৎসব শুরু হলেও মিতু আগামী ২৫ নভেম্বর উৎসবে যোগ দেবেন বলে জানান, ‘আগুন’ ছবির তিন দিনের শুটিং আছে এর মধ্যে। ফলে ওই সময়ে যেতে পারব না। শুটিং শেষ করে ২৫ নভেম্বর প্রথমে দিল্লিতে যাব। সেখান থেকে ওই দিন গোয়াতে যাব।
মিতু জানান, আগামী ৩০ নভেম্বর তাঁর দেশে ফেরার কথা আছে।