মুক্তির অনুমতি পেল ‘জেকে-১৯৭১’ সিনেমাটি। গতকাল মঙ্গলবার সিনেমাটি আনকাট সেন্সর সনদ পেয়েছে। সিনেমাটির প্রশংসা করেছেন সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা। সিনেমাটি মুক্তির অনুমতি পেয়ে খুশি সিনেমাটির নির্মাতা ফাখরুল আরিফিন খান। এখন প্রস্তুতি নিচ্ছেন সিনেমাটি মুক্তির। আগামী ফেব্রুয়ারিতে সিনেমাটি মুক্তির সম্ভাবনা রয়েছে।

ফাখরুল আরিফিন খান বলেন, ‘সিনেমা ভালো লাগলে সেন্সর বোর্ডের অনেকেই প্রশংসা করেন। কিন্তু এবার ব্যতিক্রম। সিনেমাটির গল্প দেখে অনেকেই আবেগপ্রবণ হয়ে গিয়েছিলেন। মন্ত্রণালয় থেকে ফোন করেও আমাকে জানিয়েছেন, তাঁরা আবেগপ্রবণ হয়ে গিয়েছিলেন। সেন্সর বোর্ডের সদস্য বেশ কয়েকজন একই কথা বলছেন। এগুলো আমার জন্য প্রাপ্তি।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি “জেকে-১৯৭১” সিনেমা দিয়ে একটি মানবতার গল্প দেখাতে চেয়েছি, যেটার প্রেক্ষাপট মুক্তিযুদ্ধের। কিন্তু বাকি গল্পে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই। এটা একটা প্লেন ছিনতাইয়ের গল্প। যার পেছনের গল্প মানবিক ও সত্য।’


১৪ জানুয়ারি শুরু হতে যাচ্ছে ২১তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। এবারের উৎসব শুরু হবে বাংলাদেশের সিনেমা ‘জেকে ১৯৭১’ দিয়ে। সিনেমাটি উদ্বোধনী সিনেমা হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার খবরে গর্বিত ফাখরুল আরিফিন খান। তিনি বলেন, ‘এটা আমার জন্য প্রথম অভিজ্ঞতা। আন্তর্জাতিক উৎসবের উদ্বোধনী সিনেমা মানে অনেক সম্মানের বিষয়। কারণ, উৎসবে দেশ-বিদেশের পরিচালক, সমালোচক থাকবেন, দেশের অনেক দর্শক সিনেমাটি দেখবেন। স্বাধীনতার ৫০ বছর পর এমন একটি গল্প দর্শকদের দেখানো আমার জন্য আরেকটি নতুন অভিজ্ঞতা হবে।’

সিনেমাটির গল্প সম্পর্কে ফাখরুল আরিফিন খান জানান, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সহায়তা করার জন্য ফ্রান্সের অর্লি বিমানবন্দরে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনসের (পিআইএ) একটি বিমান ছিনতাই করেছিলেন ফরাসি যুবক জ্যঁ কুয়ে। এ ঐতিহাসিক ঘটনা অবলম্বন করে নির্মিত হয়েছে ছবিটি। ইতিমধ্যে সিনেমাটি মুম্বাই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে জিতে নিয়েছে সেরা ঐতিহাসিক সিনেমার পুরস্কার। প্রদর্শিত হয়েছে ইস্তাম্বুলসহ বেশ কিছু উৎসবে।

সিনেমায় কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন পশ্চিমবঙ্গের সৌরভ শুভ্র দাশ। এ ছাড়া আরও রয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের অভিনেতা ফ্রান্সিসকো রেমন্ড, রুশ অভিনেত্রী ডেরিয়া গভ্রুসেনকো, অভিনেতা নিকোলাই নভোমিনাস্কি, পশ্চিমবঙ্গের সব্যসাচী চক্রবর্তী, ইন্দ্রনীল প্রমুখ। সিনেমার শুটিং হয়েছে কলকাতায়।