সিনেমাটির গল্প লিখেছেন সেলিনা হোসেন। ভাবনা বলেন, ‘এমন একজন বড়মাপের লেখকের গল্পের চরিত্র হওয়া গর্বের মতো। চরিত্রটি করতে পারছি এটাই আমার জন্য আনন্দের। তার প্রায় সব লেখাই আমার পড়া। তারপরে বাবার পরিচালনায় কাজ করব। বাবার সঙ্গে প্রথম সিনেমায় কাজ করার ইচ্ছা ছিল কিন্তু হলো না। অবশেষে চতুর্থ ছবি দিয়ে বাবার সঙ্গে কাজ করার ইচ্ছা পূরণ হলো। এটা আমার জন্য অনেক চ্যালেঞ্জিং। এটা আমার জন্য অনেক বড় দুটি সারপ্রাইজ।’

‘যাপিত জীবন’ উপন্যাসের পটভূমি ভাষা আন্দোলন ঘিরে। গল্পের নায়ক থাকে জাফর। তাকে দেখা যায়, বাঙালি জাতিসত্তার প্রতিনিধিত্ব করতে। উপন্যাসের কাহিনির যতই এগোতে থাকে ততই বোঝা যায়, বাঙালির শিকড় ও চিন্তার প্রতিচিত্র হয়ে ওঠে ‘যাপিত জীবন’। এই উপন্যাস একসময় হয়ে ওঠে বাংলা ও বাঙালির শিকড় অস্তিত্বের কথা। জাফরকে দেখা যায় বাঙালির বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর হিসেবে ভাষা ও মাটির জন্য কথা বলতে। এই সিনেমায় কোনো চরিত্রে ভাবনা অভিনয় করবেন এটা এখনি জানাতে চান না।

চলচ্চিত্রে ভাবনার ক্যারিয়ার শুরু হয় ‘ভয়ংকর সুন্দর’ সিনেমা দিয়ে। অনিমেষ আইচ পরিচালিত এই সিনেমায় তাঁর সহশিল্পী ছিলেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। সিনেমাটি মুক্তি পায় ২০১৭ সালে। বিরতি দিয়ে ২০২১ সালে ভাবনা দ্বিতীয় ছবি ‘লাল মোরগের ঝুটি’ সিনেমায়। সিনেমাটি পরিচালনা করেন নুরুল আলম আতিক। চলতি বছর ভাবনা নাম লিখিয়েছিলেন ‘দামপাড়া’ সিনেমা। মুক্তিযুদ্ধে চট্টগ্রামে কর্মরত পুলিশ কর্মকর্তা শামসুল ইসলামের বীরত্ব ও আত্মত্যাগের সত্য ঘটনা অবলম্বনে সিনেমাটির শুটিং শেষ করেছেন। ভাবনার চতুর্থ সিনেমা ‘যাপিত জীবন’–এ আরও অভিনয় করবেন গাজী রাকায়াত, আফজাল হোসেন, রোকেয়া প্রাচী, আজাদ আবুল কালাম প্রমুখ। আগামী ২২ তারিখ থেকে সিনেমার শুটিং শুরু হবে।