default-image

অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী আড্ডায় গাওয়া গানটি ফেসবুকে পোস্ট করে লিখেছেন, ‘“হাওয়া” সিনেমার অফিসে “হাওয়া” নিয়ে আড্ডা চলছে। সিনেমা হলে শুভমুক্তি ২৯ জুলাই। “ক্যামেরাশ্রম”–এর‍ পক্ষ থেকে “হাওয়া”র জন্য এভাবেই শুভকামনা।’ আড্ডায় খুব উচ্ছ্বাস নিয়ে গানটি গাইতে দেখা যায় চঞ্চলকে। একসময় আড্ডায় অংশ নেওয়া নির্মাতা গিয়াসউদ্দিন সেলিম, মেজবাউর রহমান সুমন, ক্যামেরাম্যান রাশেদ জামান, অভিনেত্রী নাজিফা তুষিসহ ১৫ /২০ জনের দল ঠোঁট মেলান। গানটি গাইতে গাইতেই একপর্যায়ে সিনেমাটির নায়িকা নাজিফা তুষিকে টেনে নেন চঞ্চল চৌধুরী। গানের সঙ্গেই তাঁদের নাচ আরও আকর্ষণীয় করে তোলে গানটিকে। গানটি উপভোগ করছিলেন খ্যাতিমান নির্মাতা গিয়াস উদ্দিন সেলিম। পাশেই দাঁড়িয়েছিলেন ‘হাওয়া’ সিনেমার নির্মাতা মেজবাউর রহমান সুমন। গিয়াস উদ্দিন সেলিম তাঁকে জড়িয়ে বুকে টেনে শুভকামনা জানান।

default-image

তিন মিনিটের এই গান দিয়ে পুরো আড্ডা মাতিয়েছেন চঞ্চল চৌধুরী। তাঁর গাওয়ার ভঙ্গি এবং শরীরী ভাষা গানটিকে আরও বেশি প্রাণ দিয়েছে। গানটি এক ঘণ্টায় পাঁচ শতাধিক দর্শক ফেসবুকে শেয়ার করেছেন। এই সময়ে দেখেছেন দুই লাখের মতো দর্শক। ২৯ জুলাই মুক্তি পাচ্ছে ‘হাওয়া’ সিনেমাটি। এতে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন চঞ্চল। প্রশংসা পেয়েছে তাঁর লুক। এর আগে এমন লুকে চঞ্চলকে দেখা যায়নি। খোঁচা খোঁচা কাঁচাপাকা দাড়ি, মাথার ছোট চুল, পোশাক, বাচনভঙ্গি—সব মিলিয়ে দর্শকের জন্য ভিন্ন রূপে আসছেন, আশা ব্যক্ত করে চঞ্চল চৌধুরী বলেন, ‘এটা মেজবাউর রহমান সুমনের প্রথম সিনেমা। এরই মধ্যে “হাওয়া” সিনেমার ট্রেলার ও পোস্টার সিনেমাপ্রেমী দর্শকদের কাছে যথেষ্ট প্রশংসিত হয়েছে এবং আশার সঞ্চার করেছে। “সাদা সাদা কালা কালা” গানটি সেই আশায় দ্বিগুণ গতির সঞ্চার করেছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে এই গানের জয়জয়কার। আমরা সিনেমাটি নিয়ে আশাবাদী। গল্পটা ভালো। দর্শকের মধ্যে ভিন্ন একটা দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করবে।’

default-image

জলকেন্দ্রিক মিথ নিয়ে নির্মিত সিনেমা ‘হাওয়া’। ২০১৯ সালে শুরু হয়েছিল সিনেমাটির শুটিং। গভীর সমুদ্রে একদল জেলে। মাছ ধরতে গিয়ে নানা রহস্যময় ঘটনার মুখোমুখি হন তাঁরা। কখনো উত্তাল সমুদ্রে, কখনো মানুষের আচরণে নৌকাটি হয়ে ওঠে সমুদ্রের চেয়ে ভয়ংকর। সামুদ্রিক ঝড়ে মাঝিদের অবস্থান, মাছ না ওঠা, সমুদ্রের গভীরে হারিয়ে যাওয়া, এক নারীকে নিয়ে ঘটতে থাকে নানা অপ্রত্যাশিত ঘটনা। একসময় পুরো ট্রলারেই বেঁধে যায় হাঙ্গামা। চঞ্চল চৌধুরী, নাজিফা তুষি ছাড়া শরীফুল রাজ, সুমন আনোয়ার, সোহেল মণ্ডল, নাসির উদ্দিন খানসহ অনেকেই অভিনয় করেছেন। ছবিটির কাহিনি ও সংলাপ লিখেছেন সুমন নিজেই। যৌথভাবে চিত্রনাট্য করেছেন মেজবাউর রহমান সুমন, সুকর্ণ শাহেদ ও জাহিন ফারুখ।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন