default-image

ছবিটি দেখার পর মিমের স্বামী ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, ‘আমি যখন মিমের বয়ফ্রেন্ড ছিলাম, তখন সিনেমা হলে একা বসেই তাঁর সিনেমা উপভোগ করেছি। তাঁর অভিনীত আমার দেখা প্রথম সিনেমার নাম “সাপলুডু”। এর আগে দুজনে একসাথে বসে মিমের কোনো সিনেমা দেখা হয়নি। বিয়ের পর মিমের অভিনীত প্রথম মুক্তি পাওয়া সিনেমা “পরাণ”। ব্লকবাস্টার সিনেমায় এই প্রথম দুজন একত্রে বসে সিনেমা দেখলাম। সাথে দেখলাম দর্শকদের আনন্দ ও উচ্ছ্বাস!’’

default-image

‘পরাণ’-এ মিমের চরিত্র নিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘‘পরাণ” আমার পরানে জায়গা করে নিয়েছে আর মিম তো সব সময় পরানেই আছে! বিদ্যা সিনহা মিমের স্বামী হিসেবে আমি গর্বিত। তবে বিয়ের আগে ‘পরাণ’ সিনেমাটা দেখলে, অনন্যা চরিত্রটির সাথে সম্পর্ক করার আগে কিছুটা হলেও ভেবে দেখতাম! আমি ভাগ্যবান, পর্দার অনন্যার সাথে বাস্তবের বিদ্যা সিনহা মিমের কোনো মিল নেই!’

default-image

স্বামীর এমন মন্তব্যে খুশি চিত্রনায়িকা স্ত্রীও। স্বামীর পোস্ট নিজের ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করে তিনি জানালেন ধন্যবাদ। পোস্টটি শেয়ার করে ফেসবুকে মিম লেখেন, ‘ধন্যবাদ পরাণ। তুমি (সনি) আমাকে নিয়ে লিখেছ, আমি খুবই অবাক! ‘পরাণ’–এর সাফল্যের এই কৃতিত্ব অবশ্যই পুরো টিমের। পরিচালক রায়হান রাফী থেকে শুরু করে আমার কো-স্টার রাজ, ইয়াশ এবং বাকি সবাইকে ধন্যবাদ।’’ এবার ঈদুল আজহায় দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে শরীফুল রাজ, বিদ্যা সিনহা মিম ও ইয়াশ রোশান অভিনীত ‘পরাণ’।

ঢালিউড থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন